গোয়ালে লতার ভেষজ গুণাগুণ - Herbal properties of Cayratia
Fox grape

গোয়ালে লতার ঔষধি গুণাগুণ

গোয়ালে লতা এটি একটি বহুবর্ষজীবী পর্বতারোহী যার ত্রিকোণযুক্ত পাতা ২-৩ সেন্টিমিটার লম্বা এবং ডিম্বাকৃতি থেকে আয়তাকার-ডিম্বাকৃতির পাতা। ফুল ছোট সবুজাভ সাদা এবং বাদামী রঙের। ফল মাংসল, রসালো, গাঢ় বেগুনি বা কালো, প্রায় গোলাকার, ব্যাস প্রায় ১ সেমি। 

ইংরেজি নাম: bush Grape, fox-grape, three-leaved wild vine or threeleaf cayratia

বৈজ্ঞানিক নাম: Causonis trifolia

ঔষধি গুণাগুণ

১. রক্তপ্রস্রাব বন্ধ করতে: মহিলাদের রক্তপ্রসাবে গোয়ালে লতা গাছের মূল ৫০ গ্রাম ছোট ছোট টুকরা কেটে একটি মাটির অথবা স্টিলের পাত্রে রাখতে হবে।

এবার ২০০ মিলিলিটার পানি দিয়ে সিদ্ধ করার পর ৬০ থেকে ৭০ মিলিলিটার থাকতে পাত্র চুলা থেকে নামিয়ে নিতে হবে। ঠাণ্ডা হলে পানি ছেঁকে তার মধ্যে এক কাপ কাঁচা গরুর দুধ মিশিয়ে সকাল সন্ধ্যায় খেতে হবে। এভাবে দশ থেকে পনের দিন খেলে রক্তপ্রসাব অবশ্যই বন্ধ হয়ে যাবে।

২. শরীরের কোথাও কেটে গেলে: আঘাত লেগে কেটে গেলে অথবা অস্ত্রের আঘাতে গভীরভাবে কেটে প্রবল রক্তপাত হলে গোয়ালে লতা বেটে কেটে যাওয়া জায়গায় লাগাতে হবে। তবে একটু পুরু করে লাগিয়ে বেঁধে দিলে রক্তপাত বন্ধ হয়ে যাবে। এছাড়া কাটা জায়গাও খুব তাড়াতাড়ি শুকিয়ে যায়।

৩. কীটের কামড়ের যন্ত্রণা কমাতে: বিছা, বোলতা ও ভীমরুলের কামড়ালে গোয়ালে লতার পাতা বেশ উপকারি। পাতা বেটে তার রস কামড়ানো জায়গায় তিন থেকে চারবার লাগালে যন্ত্রণা দূর হয় এবং ফুলা কমে যায়।

৪. ফোঁড়া সারাতে: ফোঁড়া হলে গোয়ালে লতার পাতা বেটে ফোঁড়ার চারপাশে লাগালে কাচা ফোঁড়া খুব তাড়াতাড়ি পেকে ফেটে যায়। গোয়ালে লতার পাতা বাটলে একরকম লালা বের হয়, এ লালা ঘা ও ফোঁড়ার পক্ষে খুবই উপকারী।

৫. প্রস্রাবের সমস্যায়: কোনো কারণে প্রস্রাব বন্ধ হলে গোয়ালে লতার মূল ৩০ গ্রাম একটা হাড়ি অথবা স্টিলের পাত্রে ২০০ মি. লি. পানি নিয়ে সিদ্ধ করতে হবে। পানি ফুটে ৫০ থেকে ৬০ মি. লি. হলে পাত্র আঁচ থেকে নামিয়ে ঠাণ্ডা করার পর পরিষ্কার পাতলা কাপড়ে ছেঁকে নিতে হবে।

এরপর ঐ পানিতে এক চামচ গাওয়া ঘি, তিল-তেল এক থেকে দেড় চামচ এবং জ্বাল দেয়া গরুর ঠাণ্ডা দুধ ৫০ মি. লি. এক সাথে মিশিয়ে খেলে প্রস্রাবের অসুবিধা দূর হয়।

৬. জ্বর সারাতে: ঠাণ্ডাজনিত কারণে জ্বর হলে গোয়ালে লতার প্রয়োগ করলে উপশম পাওয়া যাবে। এজন্য টাটকা মূল ১০ গ্রাম এবং মাষকলাই সমপরিমাণ একসাথে সামান্য ঠাণ্ডা পানি দিয়ে বেটে খেলে জ্বর সেরে যায়।