নাইট কুইন
Queen of the Night

Queen of the Night

নাইট কুইন

নাইট কুইনের বৈজ্ঞানিক নাম: Epiphyllum oxypetalum এবং ইংরেজি নাম: Dutchman's pipe ও queen of the night নামে পরিচিত।

আদি নিবাসঃ

ফুলটির আদি নিবাস মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণাঞ্চল এবং মেক্সিকো হলেও এখন বাংলাদেশের অনেক পুষ্পপ্রেমির বাড়িতে এ ফুল দেখা যায়।

ফুলের বৈশিষ্টঃ

রানীর মতো সৌন্দর্য নিয়ে রাতের গভীরে যে অপূর্ব সাদা ফুল অসাধারন মিষ্টি সুবাস ছড়িয়ে ফোটে তার নাম নাইট কুইন। রাত বেড়ে চলার সঙ্গে সঙ্গে কলি থেকে একটি একটি করে পাপড়ি মেলতে থাকে। সে সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ছড়াতে থাকে মৃদু অথচ মন কেড়ে নেয়া সুগন্ধ। প্রকৃতিপ্রেমী মানুষ নাইট কুইন ফুলের সুগন্ধ ও সৌন্দর্য উপভোগ করার জন্য ব্যাকুল হয়ে প্রতীক্ষা করে।

নাইট কুইন একটি দুর্লভ ফুল। অনেক সাধনা করে, অনেক অপেক্ষার প্রহর গুনে ফোটাতে হয় নাইট কুইন। কিন্তু তাও বেশিক্ষণ স্থায়ী হয় না। যে রাতে ফুটে সে রাতেই ঝরে পড়ে। ফুলটি দেখতে যেমন সুন্দর তেমনি গন্ধেও অতুলনীয়। সাদা রং এর ফুলের ভেতর ঘিয়ে রং এর আবরণ ও সুমিষ্ট গন্ধ নাইট কুইনকে দিয়েছে রাজকীয় চেহারা। এজন্য নাইট কুইন ফুলকে রাতের রাণী বলা হয়।

চারা গাছ হতে ফুল ফোটতে সময় নেয় ৫ থেকে ৭ বৎসরেরও অধিক সময়। এর চারা তৈরি হয় পাথরকুচি গাছের মতো পাতা থেকে। পাতা নরম মাটিতে রেখে দিলে তা থেকে ধীরে ধীরে চারা গাছ গজায় এবং এ চারা গাছ বড় গাছে পরিণত হয়। গাছের পাতার রং সবুজ ও বেশ পুরু। গাছ উচ্চতায় গড়ে ৪ থেকে ৫ ফুট পর্যন্ত হয়ে থাকে। আবার পাতা থেকেই প্রস্ফুটিত হয় ফুল।

ফুল ফোটার আগে গাছে প্রথমে গুটি গুটি কলি ধরে এবং তা ধীরে ধীরে বড় হয়ে প্রায় ১৪ থেকে ১৫ দিনের মাঝে ফুল ফোটার উপযোগী হয়। যে রাতে ফুল ফোটবে সেদিন বিকেল থেকেই কলিটি অদ্ভুত সাজে সজ্জিত হয়ে ওঠে। তখনই বুঝা যায় নাইট কুইনের ফুল ফোটার সময় হয়েছে।

ফুটন্ত ফুলের নয়নাভিরাম রূপ-সৌন্দর্য যে কাউকে আকৃষ্ট করবে। লম্বা বোঁটায় নমনীয় কোমল অনেকগুলো পাপড়ির সমন্বয়ে সৃষ্ট নাইট কুইন ফুল। মাঝে পরাগ অবস্থিত। ফুলের রং প্রধানত সাদা। তবে সাদা রঙের ফুলে মাঝে ঘিয়ে রঙের মিশ্রণ ও সুমিষ্ট গন্ধ সব মিলে নাইট কুইনকে দিয়েছে রাজকীয় ফুলের আসন। রাত শেষ হওয়ার আগেই ঝরে যায়। অর্থাৎ ভোরের আলো ফোটার আগেই জীবনাবসান।


পরবর্তী খবর পড়ুন : চা পাতা ও ফুল