উলট কম্বল উদ্ভিদের উপকারীতা

পরিচিতিঃ

বাংলাদেশের সব জায়গাতেই উলটকম্বল গাছ দেখা যায়। উলটকম্বল দেশে জন্মানো ভেষজ উদ্ভিদের মধ্যে অন্যতম। যার ইংরেজি নাম ডেভিলস কটন।বৈজ্ঞানিক নাম : Abroma auguusta ওলট কম্বল গাছ ৮ থেকে ১০ ফুট লম্বা হয়। বেশি মোটা হয় না। উলটকম্বল গুল্মজাতীয় চিরহরিৎ গাছ এটি।

পাতাঃ

পাতার সামনের দিকটা সরু, উজ্জ্বল সবুজ রঙের। পাতার বোঁটা ও কচি ডাল খয়েরি লাল, ডগার পাতাগুলো লম্বা আকৃতির। গাছের বাকল শক্ত আঁশযুক্ত।

ফুলঃ

ফুলের রং খয়েরি। পাপড়ি পাঁচটি, গাছের কচি শাখায় ফুল ফোটে। ফুল দেখতে বেশ মনোরম। গ্রীষ্ম থেকে ফুল ফোটা শুরু হয়ে শরৎকাল পর্যন্ত ফুল ফোটে এবং শীতকালেও গাছে ফুল দেখা যায়। 

ফলঃ

ফুল শেষে গাছে ফল হয়। ফল পঞ্চকোণাকৃতির, প্রথমে সবুজ রং এবং পরে পরিপক্ব ফল কালো রং ধারণ করে। পরিপক্ব ফল ফেটে যায়। ফলের ভেতর কম্বলের মতো লোমশ অংশ থাকে। ফল পাঁচটি প্রকোষ্ঠে বিভক্ত এবং এর ভেতর কালিজিরার মতো ছোট ছোট বীজ থাকে।

আদি নিবাসঃ

বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলংকায় উলটকম্বল গাছের বিস্তৃতি রয়েছে। এ ছাড়া এশিয়ার প্রধান অঞ্চল এর আদি নিবাস। 

উলট কম্বল উদ্ভিদের উপকারীতা

১.জ্বর, কৃমি, আমাশয়, সাধারণ শারীরিক দুর্বলতা এবং বায়ু আধিক্যে উলট কম্বল অত্যন্ত উপকারী।

২.উলট কম্বল চুল পড়া রোধ হয় এবং চুল ঘণ ও সবসময় কালো থাকবে। 

৩.উলট কম্বল কৃমিনাশক, অনিদ্রা দূর করে, হাঁপানি ও কুষ্ঠরোগে বহেড়ার চিকিৎসা বেশ কার্যকরী।

৪.পাতার ডাঁটা প্রস্রাবের জ্বালাপোড়া উপশম, আমাশয় রোগের জন্য উপকারী।

৫.উলট কম্বল আমাদের কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে দারুণ কার্যকর। এজন্য ৫-৬ গ্রাম উলট কম্বল খোঁসা গুঁড়ো করে এর সাথে সমপরিমাণ চিনি মিশিয়ে রাতে গরম পানি দিয়ে খেলে উপকার পাওয়া যাবে। 

৬.পাতা ও কাণ্ডের রস গনোরিয়া, ফোঁড়া ও স্ত্রী রোগে উপকারী।

৭.দীর্ঘদিন থেকে অনিয়মিত ঋতুস্রাব, জরায়ু সংক্রান্ত রোগ, বন্ধ্যাত্ব, ব্যথাসহ বিভিন্ন রোগ নিরাময়ে কার্যকর।

৮.রক্ত আমাশয়ের জন্য উলট কম্বল খুব  উপকারী।পাতা পানিতে সারা রাত ভিজিয়ে রেখে সকালে পান করলে রক্ত আমাশয় ভালো হয়ে যাবে।

৯.উলট কম্বল রস আয়ু, বল ও যৌন শক্তি বৃদ্ধি করে এবং একই সাথে আমাদের বার্ধক্যজনিত সমস্যা কমায় ।

১০.উলট কম্বলের ডাঁটা সিদ্ধ করে এর ক্লাথ ক্ষতস্থানে লাগিয়ে দিলে ঘা-পাঁচড়া রোগ দূর হয়।

গবাদিপশুর পাতলা পায়খানা, বিলম্ব প্রজনন এবং হাঁস-মুরগির বিভিন্ন চিকিৎসায় উলটকম্বলের ব্যবহার রয়েছে।