ঢাকার আবাসিক হোটেল তালিকা, নাম, মোবাইল নাম্বার, ঠিকানা

ঢাকার আবাসিক হোটেল তালিকা, নাম, মোবাইল নাম্বার, ঠিকানা

মানুষ প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে ঢাকা রাজধানী কাজের উদ্দেশ্যে আসে। বাংলাদেশের ব্যবসা-বাণিজ্যের জন্য সবথেকে ভালো জায়গা ঢাকা। ঢাকায় ব্যবসা অথবা অন্যান্য কাজে জন্য যখন মানুষ আসে। তখন বেশিভাগ সময় রাত্রি যাপন করতে হয়। রাত্রি যাপন করার জন্য ঢাকায় অনেক হোটেল রয়েছে। তবে কোন আবাসিক হোটেলগুলো সবথেকে ভালো সে সম্পর্কে বেশিরভাগ মানুষ জানে না। তাছাড়া প্রতিটি হোটেল বা প্রবাসী আবাসিক সম্পূর্ণরূপে নিরাপত্তা দিতে পারেনা। তাই আমরা ঢাকার সেরা হোটেল গুলোর নাম্বার সংগ্রহ করতে পেরেছি এবং কীভাবে যাবেন তা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হবে।

আবাসিক হোটেলের নাম
ঠিকানা
ইম্পেরিয়াল হোটেল ইন্টারন্যাশনাল, বিবি এ্যভিনিউ
পল্টন, বঙ্গবন্ধু এভিনিউ
এরো-লিংক ইন্টারন্যাশনাল লি:

হাউজ # ৩৭, রোড # ১৫, সেক্টর # ৩, রবীন্দ্র স্মরণী, উত্তরা মডেল টাউন, ঢাকা – ১২৩০, বাংলাদেশ।

ফোন: ৮৯১৬০৫২, ৮৯২০৪১০

মোবাইল: ০১১৯৯-৮০২৯০১

ফ্যাক্স: ০২-৮৯২০৪১০

ই-মেইল: aerolink@sparkbd.net

ওয়েষ্টিন ঢাকা
গুলশান, গুলশান ২
কর্ণফুলী গেষ্ট হাউজ
na
কল্পনা বোর্ডিং ও হোটেল
কোতোয়ালী, শাঁখারী বাজার
কোয়ালিটি ইন (আবাসিক হোটেল গুলশান)
গুলশান, গুলশান ২
গার্ডেন রেসিডেন্স

গার্ডেন রেসিডেন্স ( Garden Residence )·        বাড়ি ১৩, সড়ক ০৪, সেক্টর ০১,উত্তরা, ঢাকা, বাংলাদেশ।

ফোন: ৮৯৩২৪৬৪, ৮৯৩২০৭৬

 ফ্যাক্স: ৮৯৫৩০২৬

ইমেইল: admin@gardenresbd.com

গোধূলী গেষ্ট হাউজ

গ্র্যান্ড ঢাকা হোটেল
উত্তরা, সেক্টর ৯
টাইম স্টার হোটেল আবাসিক
সূত্রাপুর, ঠাঁটারী বাজার
ঢাকা মিড টাউন হোটেল
গুলশান, গুলশান ১
ঢাকা মিড টাউন হোটেল
গুলশান, গুলশান ১
ঢাকা হোটেল
বংশাল, বংশাল
নিউ শাপলা আবাসিক হোটেল, মালিবাগ চৌধুরীপাড়া
খিলগাঁও, দক্ষিণ শাহজাহানপুর
বিউটি বোর্ডিং (শ্রীশদাস লেন)
কোতোয়ালী, জনসন রোড
বেঙ্গল ইন হোটেল
গুলশান, গুলশান ১
বেস্ট ওয়েস্টার্ন লা ভিঞ্চি হোটেল
তেজগাঁও, কাওরান বাজার
রিগস ইন হোটেল
গুলশান, গুলশান ১
রুপসী বাংলা হোটেল
শাহবাগ, মিন্টু রোড
রেডিসন ব্লু ওয়াটার গার্ডেন হোটেল
ক্যান্টনমেন্ট, ক্যান্টনমেন্ট
শ্যালেট লাক্সারী হোটেল এবং রেষ্টুরেন্ট
গুলশান, গুলশান ১
সুন্দরবন হোটেল
শেরে বাংলা নগর, পান্থ পথ
সুন্দরবন হোটেল (আবাসিক)
শাহবাগ, শাহবাগ
স্যুইট ড্রিম বুটিক হোটেল
গুলশান, কামাল আতাতুর্ক এভিনিউ
হোটেল অবকাশ
গুলশান, মহাখালী
হোটেল অরচার্ড প্লাজা
পল্টন, নয়াপল্টন
হোটেল জাকারিয়া ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড
গুলশান, মহাখালী
হোটেল ডি মেরিডিয়ান লি:

হোটেল ডি মেরিডিয়ান লী: বাড়ী # ১১, সড়ক # ১২, সেক্টর # ৬, উত্তরা, ঢাকা।

ফোন- ৮৯১৯২০১, ৮৯৬০৯৪৫

মোবাইল- ০১৮২৩-০৬৩৩৫৮

ফ্যাক্স- ৮৮-০২-৮৯১১৯১৬

ই-মেইল- hdmeeridian@yahoo.com

হোটেল রেডিয়ান (আবাসিক হোটেল)

বাড়ী# ৮এ, সেক্টর# ৯, উত্তরা, ঢাকা- ১২৩০·

ফোন-০৩৮৯৭৭৮৮১০০-২

ফ্যাক্স- ৮৮-০২-৮৯১৯৭২০

মোবাইল- ০১৮২২-৮৯৪০৬২

ই-মেইল- hotelradian@yahoo.com

হোটেল সিটি হোমস্

সিটি হোমস, বাড়ী# ৪, রোড# ৩বি, সেক্টর# ৬ (আজমপুর), উত্তরা, ঢাকা।

ফোন- ০২- ৮৯৫১৪৬৩,৮৯৩১২৮০

ফ্যাক্স- ৮৮-০২-৮৯৩১৪৬৫

ই-মেইল- cityhomes@dhaka.net

ওয়েব- www.hotel.info, www.hotelcityhomes.com

হোটেল হাসান ইন্টারন্যাশনাল
মতিঝিল, মতিঝিল
হোটেল আনোয়ারা (আবাসিক)
যাত্রাবাড়ী, সায়েদাবাদ
হোটেল আম্বালা ইন (আবাসিক)
ধানমন্ডি, ধানমন্ডি
হোটেল আল রাজ্জাক ইন্টারন্যাশনাল
বংশাল, বংশাল
হোটেল আল হাবিব (আবাসিক)
সূত্রাপুর, কাপ্তান বাজার
হোটেল আশরাফি
পল্টন, পল্টন
হোটেল আহেলী আবাসিক, রাজারবাগ
খিলগাঁও, রাজার বাগ
হোটেল ইন্টারকম (আবাসিক)
যাত্রাবাড়ী, সায়েদাবাদ
হোটেল ইসরাত টু স্টার
বংশাল, নবাবপুর
হোটেল ইসলামিয়া ইন্টারন্যাশনাল
পল্টন, কাকরাইল
হোটেল ইয়ামেনী ইন্টারন্যাশনাল আবাসিক
পল্টন, পল্টন
হোটেল ইয়েমেনী ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড
পল্টন, পল্টন
হোটেল এসকট
গুলশান, বারিধারা
হোটেল ওলিও ইন্টারন্যাশনাল
কলাবাগান, পান্থপথ
হোটেল ওসমানী ইন্টারন্যাশনাল
সূত্রাপুর, সূত্রাপুর
হোটেল ওয়াশিংটন লি:

হোটেল ওয়াশিংটন লি: ৫৬, গুলশান দক্ষিণ এভিনিউ বা এ,ঢাকা।

যোগাযোগ: ৮৮৫১৪৬৭

হোটেল কর্ণফুলী (আবাসিক)
শাহবাগ, তোপখানা
হোটেল ক্যাটালিনা ইন (আবাসিক)
আদাবর, আদাবর
হোটেল গুলশান ইন
গুলশান, গুলশান ১
হোটেল গোল্ডেন ডিয়ার
গুলশান, গুলশান ২
হোটেল গোল্ডেন পিক
কোতোয়ালী, ওয়াইজঘাট
হোটেল গ্রীণ আবাসিক এন্ড রেষ্টুরেন্ট, টাউন হল
মোহাম্মদপুর, টাউন হল
হোটেল ছায়ানীড় (আবাসিক)
যাত্রাবাড়ী, সায়েদাবাদ
হোটেল জবেদা ইন্টারন্যাশনাল
বংশাল, নবাবপুর
হোটেল দি ক্যাপিটাল
পল্টন, নয়াপল্টন
হোটেল নিউ ইয়র্ক (আবাসিক)
শাহবাগ, তোপখানা
হোটেল নিউ শুভেচ্ছা ইন্টারন্যাশনাল (আবাসিক), সিদ্দিক বাজার
বংশাল, সিদ্দিক বাজার
হোটেল ফার্মগেট (আবাসিক)
শেরে বাংলা নগর, ফার্মগেট
হোটেল বাইতুল হামদ আবাসিক
দারুসসালাম, গাবতলী
হোটেল বায়তুস সামীর ইন্টারন্যাশনাল
বংশাল, বংশাল
হোটেল ভিক্টোরী
শাহবাগ, নয়াপল্টন
হোটেল মিডওয়ে ইন্টারন্যাশনাল (প্রা:) লিমিটেড
পল্টন, নয়াপল্টন
হোটেল মুনমুন (আবাসিক)
যাত্রাবাড়ী, সায়েদাবাদ
হোটেল মেহরান (আবাসিক)
যাত্রাবাড়ী, সায়েদাবাদ
হোটেল রমনা রেসিডেন্সিয়াল
পল্টন, বঙ্গবন্ধু এভিনিউ
হোটেল রাজমণি ঈসা খাঁ
পল্টন, কাকরাইল
হোটেল রেডিয়ান
উত্তরা, সেক্টর ৯
হোটেল রয়্যাল প্যালেস (প্রা:) লি:
শাহবাগ, তোপখানা
হোটেল লি ভিন ইন আবাসিক, রাজারবাগ
খিলগাঁও, রাজার বাগ
হোটেল লেক ক্যাসেল লিমিটেড
গুলশান, গুলশান ২
হোটেল লেকশোরগুলশান, গুলশান ২
হোটেল শহীদবাগ (আবাসিক), দক্ষিণ শাহজাহানপুর
খিলগাঁও, দক্ষিণ শাহজাহানপুর
হোটেল শাদ ইন্টারন্যাশনাল
বংশাল, নবাবপুর
হোটেল সফিনা আবাসিক, হাজী ওসমান গনী রোড
বংশাল, বংশাল
হোটেল সম্রাট আবাসিক
শাহবাগ, তোপখানা
হোটেল সিটি প্যালেস আবাসিক
বংশাল, সিদ্দিক বাজার
হোটেল সেন্টার পয়েন্ট
গুলশান, গুলশান ২
হোটেল সেল নিবাস (আবাসিক)
৩০ এসইএল গ্রীন সেন্টার, গ্রীন রোড ধানমন্ডি রোড নং ০৮ এর শেষে গ্রীন লাইফ হাসপাতাল ঢাকার পাশে, ১২০৫
হোটেল স্কাই গার্ডেনসোনারগাঁও রোড, ঢাকা 1205
হোটেল ৭১
পল্টন, বিজয়নগর
হোয়াইট হাউজ হোটেল
পল্টন, শান্তিনগর


ঢাকার সেরা হোটেলের নাম

AMARI DHAKA (আমারই ঢাকা)

আমারই ঢাকা হোটেল

টুরিস্টদের পছন্দের তালিকায় বরাবরই শীর্ষে আছে আমারই ঢাকা। গুলশান-২ এর ৪১ নং রোডে অবস্থিত হওয়াতে, শহরের সকলেই সহজেই যাতায়াত করতে পারেন এখান থেকে। এই হোটেলের আশে পাশে প্রায় সবকিছুই রয়েছে। শপিং কমপ্লেক্স যমুনা ফিউচার পার্ক আছে মাত্র ৩ কিলোমিটারের মধ্যে। এছাড়া টুরিস্টদের জন্য এখানে চেকইন করবার জন্য রয়েছে বিশেষ সুবিধা। হোটেলের কাছেই রয়েছে কানাডিয়ান, অস্ট্রেলিয়ান এবং ফ্রেঞ্চ অ্যাম্বাসি। ঘুরতে আসা সকল মানুষের নিরাপত্তার কথা ভেবে, দুটি প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কুকুর দ্বারা নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। এরা সন্দেহজনক আচরণ কিংবা যেকোন সন্দেহজনক আলামত চিহ্নিত করার কাজ করে। তাই এখানে আসা সবাই নিশ্চিন্তে তাদের সময় কাটাতে পারেন। এছাড়া লোভনীয় রুফটপ ভিউ এবং নান্দনিক ডেকোরেশন তো থাকছেই। সুতরাং, হোক সেটা চেকইন কিংবা খানিক সময়ের জন্য ঘুরতে আসা। দুটোতেই আপনার আনন্দ শতভাগ!

বিশেষ আকর্ষণঃ এখানে বিশেষ আকর্ষণের মধ্যে থাকছে, স্পেশাল রেস্টুরেন্ট, ডেক ফরটি ওয়ান রুফটপ বার, জ্যাটেড টাব, কিডস সুইমিং পুল, ব্রিজ স্পা, ষ্টীম রুম। এছাড়া আপনাকে সব কিছুই ভুলিয়ে দিতে পারে এমন চমৎকার রুফটপ ভিউ।

বিমানবন্দর থেকে দূরত্বঃ ৮ কিলোমিটার

খরচঃ একেকটি রুমের ভাড়া ১৫,২০০ টাকা থেকে শুরু হয়। আর যদি শুধু খেতে আসতে চান সেক্ষেত্রে সর্বনিম্ন ২০০০ টাকা খরচ করতে হবে।

DHAKA WESTIN (ঢাকা ওয়েস্টিন)

ঢাকা ওয়েস্টিন হোটেল

ঢাকার সেরা বিলাসবহুল হোটেল নিয়ে তালিকা করতে গেললে তাতে থাকবেই হোটেল ওয়েস্টিনের কথা। ঢাকার অন্যতম উঁচু একটি ভবন এই ওয়েস্টিন। গুলশান ২ এ অবস্থিত এই হোটেলটি ২৪ তলা এবং এতে রয়েছে ২৪১ টি রুম ও ৬টি রেস্টুরেন্ট। বিয়ের অনুষ্ঠান থেকে শুরু করে অফিসের কনফারেন্স সবকিছুই এখানে বড় পরিসরে হয়ে থাকে। ৮টির মত ইভেন্ট রুম রয়েছে যেখানে ৬০০ জনের মত মানুষ একসাথে অবস্থান করতে পারবে। এই ইভেন্ট রুমগুলো দু-ভাবেই ব্যবহার করা যায়। অফিসের মিটিং কিংবা বিয়ের অনুষ্ঠান। বিলাসবহুল এই হোটেলটির রুফটপ ভিউ মনে রাখার মত। ছাদ থেকে গুলশান ১ ও ২ সার্কেল দেখতেও ভীষণ সুন্দর। বাকী রইল খাবার সেটাও অনেক মজার। গুলশান ২ এ অবস্থিত হওয়ার কারণে, টুরিস্টদের জন্য বেশ সুবিধাজনক একটি থাকার জায়গা। পরিবার নিয়ে একটি সন্ধ্যা কাটানোর জন্য বেশ সুন্দর এই জায়গাটি। নিরিবিলি সময় কাটানোর জন্য বেশ উপযুক্ত একটি জায়গা।

বিশেষ আকর্ষণঃ এয়ারপোর্ট যাতায়াত ব্যবস্থা, স্পা সার্ভিস, ফিটনেস সেন্টার এবং সুইমিংপুল

বিমান বন্দর থেকে দূরত্বঃ ১০ কিলোমিটার

বাজেটঃ ডিলাক্স কিং, এখানে পাবেন ১৪,০০০ টাকা থেকে 

LAKESHORE BANANI (লেকশোর বনানী)

লেকশোর বনানী হোটেল

নিরিবিলি একটা সন্ধ্যা কাটানোর জন্য কিংবা অন্য যে কোন প্রয়োজনে আপনি বেছে নিতে পারেন লেকশোর বনানী। মনোরম রুফটপ ভিউ, সেই সাথে রুফটপ সুইমিং পুল, আর কী লাগে? খোলা আকাশের নিচে নিরিবিলি সময় কাটাতে যদি চান তাহলে, ঢাকার সেরা বিলাসবহুল হোটেল লেকশোর হতে পারে আপনার প্রথম পছন্দ! মজাদার সব কুইজিন, চমৎকার আতিথেয়তা আর সর্বোচ্চ নিরাপত্তা সবকিছুই আছে এখানে। টুরিস্টদের জন্য রয়েছে বাইসাইকেল রেন্ট, ঢাকা শহরকে এক্সপ্লোর করার অনন্য সুযোগ। বনানী ১১ এর ১৩ এ, ৮১ নং ভবনে এই হোটেল অবস্থিত, যা শহরের অন্যতম একটি ব্যস্ত এলাকা। বেশিরভাগ সময়ই এখানে বিদেশীরা ভিড় জমায়। কিন্তু, যারা নিজের মত করে সময় কাটাতে চান তারাও চলে আসতে পারেন এখানে। চমৎকার খাবার দাবারের পাশাপাশি রয়েছে মনোরম প্রাকৃতিক পরিবেশ। ২৪ ঘণ্টা হোটেল সার্ভিস তো থাকছেই। ঘরোয়া কোন অনুষ্ঠান কিংবা পার্টি সবকিছুর জন্যই চাইলে এই হোটেল ভাড়াও নিতে পারেন।

বিশেষ আকর্ষণঃ রুফটপ সুইমিং পুল, রেস্টুরেন্ট।

বিমানবন্দর থেকে দূরত্বঃ  ৮ কিলোমিটার

বাজেটঃ এক্সিকিউটিভ সুইট ২৯,৪৭৫ টাকায় পাওয়া যাবে। এছাড়া পেন্টহাউজ সুইটের খরচ এর থেকে কিছুটা বেশি।

LE MERIDIEN DHAKA (লে মেরিডিয়ান ঢাকা)

খিলক্ষেত, নিকুঞ্জ ২ এ অবস্থিত এই হোটেলটি এয়ারপোর্টের বেশ কাছে হওয়াতে টুরিস্টদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারে সহজেই। ১২টির মত ইভেন্ট রুম রয়েছে এখানে, যেখানে ১৫০০ জনের মত মানুষ একসাথে অবস্থান করতে পারবে। বিজনেস মিটিং থেকে শুরু করে বিয়ে এবং ব্যক্তিগত প্রায় সকল অনুষ্ঠান এখানে সুন্দরভাবে হয়ে থাকে। এই হোটেলের রুফটপ ভিউ ভোলার মত নয়। মজাদার খাবার সেই সাথে নিরিবিলি পরিবেশ এই শহরের জন্য এক দুর্লভ পাওয়া। বিভিন্ন কুইজিনের মজাদার খাবার থাকছে সবসময়। বিনোদনের জন্য রয়েছে স্পা, ফিটনেস সেন্টার, প্লে জোন। আনন্দঘন কিছু সময় কাটানোর জন্য এটি উত্তম একটি জায়গা হতে পারে আপনার জন্য!

বিশেষ আকর্ষণঃ স্পা, জিম, সুইমিংপুল, রুফটপ ভিউ।

বিমান বন্দর থেকে দূরত্বঃ ৩ কিলোমিটার মাত্র

বাজেটঃ  এখানে একেকটি রুমের ভাড়া ১৮,০০০ টাকা থেকে শুরু হয়।

DHAKA REGENCY HOTEL & RESORT (ঢাকা রিজেন্সি হোটেল অ্যান্ড রিসোর্ট)

ঢাকার অন্যতম এলাকা নিকুঞ্জ ২ এ অবস্থিত এই ৫ তারা হোটেলটি। এটিও বিমানবন্দরের কাছে হওয়াতে টুরিস্টদের মনোযোগ সহজেই কেড়ে নেয়। যাতায়াত সুবিধাটা অনেক বড় একটা ভাবনার বিষয় ঢাকায়। সর্বক্ষণিক ওয়াইফাই কানেকশন, ২৪ ঘন্টা রুম সার্ভিস। বলতে গেলে কি নেই এখানে, বৃহৎ পার্কিং সুবিধা, ক্যাফে, ওপেন এয়ার গ্রিল ইত্যাদি। মজাদার সব কুইজিন, সেই সাথে রানওয়ে ভিউ। একটি সুন্দর সন্ধ্যায় পরিবারের সাথে মজাদার খাবার উপভোগ করছেন এবং দেখছেন রানওয়েতে বিমান ছুটে যাচ্ছে, এমন দৃশ্য কিন্তু বেশ চমৎকার। নিজের মত করে সময় কাটাতে চাইলে স্পা এবং ফিটনেস সেন্টার তো রয়েছেই।

বিশেষ আকর্ষণঃ স্পা, ফিটনেস সেন্টার, ফ্রি পার্কিং, আউটডোর সুইমিং পুল এবং বার।

বিমানবন্দর থেকে দূরত্বঃ ৩ কিলোমিটার

বাজেটঃ এখানে একেকটি রুমের ভাড়া ১২,০০০ টাকা থেকে শুরু হয়

কীভাবে হয় হোটেল বুকিং

আজকাল মোটামুটি সব হোটেলের ওয়েবসাইট থেকে আগাম কক্ষ বুক করা যায়। কাজটা হয় বিশেষায়িত সফটওয়্যারের মাধ্যমে। কোন সুবিধার কোন কোন কক্ষ ফাঁকা আছে, কিংবা কবে থেকে ফাঁকা হবে, তা হোটেল কর্তৃপক্ষের পক্ষে কেউ একজন সফটওয়্যারে ইনপুট দেন। সে সফটওয়্যারের সঙ্গে ওয়েবসাইট যুক্ত থাকে। ফলে ভ্রমণে ইচ্ছুক কেউ যখন ওয়েবসাইটে ঢুঁ মারেন তখন সহজেই নির্দিষ্ট তারিখে ফাঁকা কক্ষগুলোর একটা তালিকা পান। ছবি দেখে, ভাড়া অনুযায়ী সুবিধা বুঝে বুক করলেই হয়ে গেল। এখন তো ওয়েবসাইটেই আগাম মূল্য পরিশোধ করা যায়। আবার হোটেলে গিয়েও সে ব্যবস্থা থাকে।

অনেক ওয়েবসাইট আছে যারা অনেকটা এজেন্সি হিসেবে কাজ করে। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে এক্সপিডিয়া, বুকিং ডটকম, অ্যাগোডা কিংবা বাংলাদেশে আমার রুম ডটকম, ভ্রমণ ডটকম, ঘুরব ডটকম, টিকিটশালা ডটকম। এই ওয়েবসাইটগুলোতে দিনক্ষণের হিসাব ও কক্ষের ধরনের পাশাপাশি আপনি যে এলাকায় যেতে চান সেটা উল্লেখ করে দিতে হয়। ওই এলাকায় ওই সময়ে কোন কোন হোটেলের কোন কোন কক্ষ ফাঁকা আছে, তা দেখাবে।

অনলাইনে হোটেল বুক করার সুবিধা

হোটেল বুকিং ওয়েবসাইটের অনেকগুলো সুবিধার একটি হলো, অচেনা জায়গায় প্রতিটি হোটেলের নাম আলাদা করে জেনে নেওয়ার প্রয়োজন নেই। এক ওয়েবসাইটেই আপনি সব কটি হোটেলের তালিকা পেয়ে যাবেন। হোটেল কেমন, তা ছবি দেখে তো জানতে পারবেনই, পাশাপাশি আগে যাঁরা গিয়েছিলেন, তাঁদের লেখা পর্যালোচনা (রিভিউ ও রেটিং) দেখেও হোটেলের মান সম্পর্কে ধারণা পাবেন। এ ধরনের ওয়েবসাইটগুলোতে রেটিং বা দামের ক্রম অনুযায়ী হোটেলের তালিকা দেখার সুযোগ আছে। ফলে যেমন মান ও দাম চান, তেমনই পাওয়ার সুযোগ থাকে। সবচেয়ে বড় কথা, সব কটি হোটেলের তালিকা একসঙ্গে দেখায় বলে হোটেলগুলোর মধ্যেও একটা প্রতিযোগিতা চলে। এতে মূল্যছাড় পাওয়ার সুযোগ বেড়ে যায়। অনেক ওয়েবসাইটে প্যাকেজ ট্যুরের সুবিধাও আছে। সেগুলোও দেখা যেতে পারে।

হোটেল বুকিংয়ের ওয়েবসাইট

বিদেশ ভ্রমণের বেলায় বুকিং ডটকম (www.booking.com), এক্সপিডিয়া (www.expedia.com), ট্রিপ অ্যাডভাইজার (www.tripadvisor.com), অ্যাগোডা (www.agoda.com), প্রাইসলাইন (www.priceline.com), হোটেল ডটকম (www.Hotels.com) কিংবা ট্রিভাগোর (www.trivago.com) মতো ওয়েবসাইটগুলো দেখতে পারেন। অবশ্য আজকাল অনেকে গুগলকেও এই তালিকায় রাখতে চান। কারণ গুগলের ভ্রমণসংক্রান্ত খোঁজখবরের বেলায় সরাসরি হোটেল বুক করার অপশন দেখায়।

বাংলাদেশের পাঁচ তারকা হোটেলের তালিকা
কক্সবাজারের সেরা ১০টি হোটেল-Top 10 Hotel at Cox's Bazar