বাংলাদেশের সেরা ৫টি ১২৫ সিসি মোটরসাইকেল - Top 5 125cc Motorcycles in Bangladesh
Top 5 125cc Motorcycles in Bangladesh

বাংলাদেশের সেরা ৫টি ১২৫ সিসি মোটরসাইকেল - Top 5 125cc Motorcycles in Bangladesh

আমাদের দেশে মোটরসাইকেলের চাহিদা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে সেই সাথে কোম্পানীগুলোর কিছু অফার এবং মোটরসাইকেলের দাম কম হওয়াতে বর্তমানে প্রায় প্রত্যেক ঘরে ঘরে মোটরসাইকেল দেখা যায়। শহরের মানুষের অফিস যাতায়াত কিংবা ছুটির দিনে বন্ধুদের সাথে একটু লং রাইডে যাওয়া ইত্যাদি ক্ষেত্রে মোটরসাইকেলের চাহিদা বাড়ছে সেই সাথে শহরের অসহনীয় জ্যামে আটকা পড়ে থাকার বিকল্প উপায় হিসেবে মোটরসাইকেলের প্রয়োজন বাড়ছে। অন্যদিকে গ্রামের রাস্তায় মোটরসাইকেলের পরিমাণ বাড়ছে। সময় বাঁচাতে গ্রামের মাইলের পর মাইল রাস্তা মোটরসাইকেলই পাড়ি দিতে পারে। যুগের সাথে তাল মিলিয়ে মানুষ এখন খুব অল্প সময়ে অনেক দূর পথ পাড়ি দিতে চায়, তাই অনেকেই বেশী স্পীড, সহনীয় মাইলেজ এবং একটু লং ট্যুরের জন্য ১০০ সিসির থেকে ১২৫ সিসিকেই বেশী প্রাধান্য দিয়ে থাকেন।

১.টিভিএস রেইডার ১২৫(TVS Rider 125)

দেশের বাজারে ১২৫ সিসির যতগুলো মডেল আছে তার মধ্যে সর্বশেষ এসেছে টিভিএস রেইডার ১২৫ মডেলটি। বাজারে আসতে না আসতেই তরুণরা এই বাইকটি লুফে নিয়েছে। এটি দেখতে ১২৫ সিসির বাইক হলে মনে হয় যেনো ১৫০ সিসির। দুর্দান্ত লুকস ও মাইলেজসহ এই বাইকটির দামও আপনার সাধ্যের মধ্যেই।

এই মোটরসাইকেলে এলসিডি ডিজিটাল স্পিডোমিটার, থ্রি-ভ্যালভ আই-টাচ স্টার্ট ইঞ্জিন, অ্যানিমেলিস্টিক এলইডি হেডল্যপর মতো দারুণ সব ফিচার রয়েছে। টিভিএস রেইডার মোটরসাইকেলটি লাল, নীল, কালো ও হলুদ এই চারটি কালারে পাওয়া যায়।

টিভিএস রেইডারে আছে অ্যাডভান্সড ১২৪.৭৬ সিসি এয়ার ও অয়েল কুলড থ্রি-ভ্যালভ ইঞ্জিন, যা ৮০০০ আরপিএমে সর্বোচ্চ ১২.৯ পিএস শক্তি উৎপাদন করতে সক্ষম। এটি ৬৫০০ আরপিএমে ১১.৫ নিউটর মিটার টর্ক উৎপাদন করতে পারে। দাম এক লাখ ৪৪ হাজার ৯০০ টাকা।

২.সুজুকি জিএসএক্স ১২৫(Suzuki GSX 125)

জাপানির বিখ্যাত মোটরযান নির্মাতা প্রতিষ্ঠান সুজুকি বাজারে বেশ কয়েকটি মডেল বিক্রি করছে। এর মধ্যে একটি জিএসএক্স ১২৫। প্রতিষ্ঠানটি একে স্ট্রিট অলরাউন্ডার হিসেবে আখ্যায়িত করেছে। কেননা, এর মাইলেজ অনেক। সুজুকি দাবি করছে এই বাইক এক লিটার জ্বালানিতে ৬০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে সক্ষম। সুজুকি বাংলাদেশ তাদের সকল মডেলের বাইক কেনার জন্য কিস্তি সুবিধাও দিচ্ছে। ডিবিবিএল এবং সিটি ব্যাংকের আমেরিকান এক্সপ্রেসের ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে ইএমআই বা কিস্তি সুবিধা পাওয়া যাবে।  

সুজুকি জিএসএক্স ১২৫ মডেলটি একটি কমিউটার বাইক। এতে রয়েছে ১২৫ সিসির এয়ার কুলড ইঞ্জিন। এই ইঞ্জিন থেকে ৯০০০ আরপিএমে ১০.৪ বিএইচপি শক্তি এবং ৭০০০ আরপিএমে ৯.২ টর্ক পাওয়া যাবে। বাইকটি কার্বুরেটর ইঞ্জিনের। এতে ৫ স্পিড গিয়ার বক্স রয়েছে। এতে কিক স্টার্টারের পাশপাশি সেলফ স্টার্টারও সংযোজন করা আছে। জিএসএক্স ১২৫ মডেলের গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্স ১৬৭ মিলিমিটার। স্যাডেল হাইট ৭৬৫মিলিমিটার। ওজন ১২৬ কেজি। এর ফুয়েল ট্যাংকর জ্বালানির ধারণ ক্ষমতা ১৪.২ লিটার।

এই সেগমেন্টের অন্যান্য বাইকের মত এই বাইকেও দেয়া হয়েছে টেলিস্কোপিক ফ্রন্ট সাসপেনশন এবং রিয়ারে দেয়া হয়েছে হাইড্রোলিক কয়েল স্প্রিং ড্যাম্পার। এর টায়ার ২.৭৫/১৮ ইঞ্চির। রিয়ার টায়ার ৯০ সেকশনের। উভয় চাকায় টিউবলেস টায়ার দেওয়া হয়েছে। ফ্রন্টে রয়েছে ডিস্ক ব্রেক। রিয়ারে ড্রাম ব্রেক। 

বাইকটির অন্যান্য ফিচারের মধ্যে রয়েছে ফুয়েল ট্যাংকের দুইপাশে মনোমুগ্ধকর কিট, থ্রি-পার্ট হ্যান্ডেল বার, এনালগ স্পিডমিটার, হ্যালোজেন হেডলাইট, বাল্ব টেইল লাইট। বাইকটি তিনটি ভিন্ন ভিন্ন কালারে পাওয়া যাবে। এগুলো হলো কালো, লাল এবং নীল। বাংলাদেশের বাজারে মডেলটি বিক্রি হচ্ছে ১ লাখ ৪১ হাজার ৯৫০ টাকায়। 

৩.হোন্ডা সিবি শাইন ১২৫(Honda CB Shine 125)

হোন্ডার মাইলেজ কিং খ্যাতি পেয়েছে শাইন মডেল। দীর্ঘদিন ধরেই ভারত, বাংলাদেশসহ এশিয়ার অনেক দেশেই এই মডেল জনপ্রিয়। বাইকটিতে রয়েছে একটি সিঙ্গেল সিলিন্ডারের ১২৪.৭৩ সিসির এয়ার কুলড ইঞ্জিন। কমিউটার বাইক সেগমেন্টে যে বাইকগুলোর জনপ্রিয়তা সব থেকে বেশি, তার মধ্যে অন্যতম হোন্ডা শাইন।

১২৫ সিসির এই বাইকটির বিএস ৬ মডেলটিতে সামনে ও পিছনের চাকায় রয়েছে ড্রাম ব্রেক। দেশের সাধারণ জনগণের উদ্দেশ্যে তৈরি করা মাস মার্কেট বাইকটিতে রয়েছে উন্নত মাইলেজ ও রিফাইনমেন্ট। ফলে, দেশের বাইক বাজারে একটি অন্যতম সেরা প্যাকেজ হিসেবেই উত্তীর্ণ হয়েছে এই বাইকটি। এছাড়াও রয়েছে মর্ডান গ্রাফিক্স। ফলে লুক্সের দিক থেকে খুবই আকর্ষণীয় এই বাইকটিকে পছন্দ করেন সকলেই।

বাইকটিতে রয়েছে একটি সিঙ্গেল সিলিন্ডারের ১২৪.৭৩ সিসির এয়ার কুলড ইঞ্জিন। এই বাইকটিতে আপনি পেয়ে যাবেন ৭৫০০ আরপিএমে ১০.১৬ হর্স পাওয়ার। অন্যদিকে ৫,৫০০ আরপিএম এই বাইক ১০.৩০ নিউটন মিটার টর্ক উৎপাদন করতে পারে। বাইকটিতে রয়েছে এলইডি হেডল্যাম্প। ফলে লুকস ও ইঞ্জিনের দিক থেকে অনেক দামি বাইককেও অনায়াসেই টেক্কা দেওয়ার ক্ষমতা রয়েছে হোন্ডা শাইনের।

বাইকটির সাসপেনশনের কথা বলতে গেলে অবশ্যই সামনের হাইড্রলিক টেলিস্কোপিক ফর্কের কথা উল্লেখ করতে হয়। অন্যদিকে, বাইকের পিছনের চাকায় রয়েছে ডুয়াল হাইড্রলিক কয়েল স্প্রিং। বাইকটির সাসপেনশন স্পঞ্জি হওয়ার কারণে খারাপ রাস্তাতেও আপনি পেয়ে যাবেন ভালো রাইড কোয়ালিটি। খারাপ রাস্তাতে ভালো রাইড কোয়ালিটি অফার করার ক্ষেত্রে হোন্ডা শাইনের জুড়ি মেলা ভার।

মোট দুটি ভ্যারিয়েন্টে এই বাইকটি কিনতে পারবেন গ্রাহকরা। একটি ভ্যারিয়েন্টে আপনি ডুয়াল ড্রাম ব্রেক এবং অন্যটিতে ডিস্ক ব্রেকের অপশন রয়েছে। শুধুমাত্র শহরের রাস্তায় নয়, হাইওয়েতেও দুর্দান্ত পার্ফরম্যান্স পেয়ে যাবেন এই বাইক থেকে। এতে রয়েছে সম্পূর্ণ ডিজিটাল ইনস্ট্রুমেন্ট ক্লাস্টার। বাংলাদেশে শাইন মডেলটি বিক্রি হচ্ছে সিবি শাইন এসপি নামে। দাম ১ লাখ ৩৯ হাজার ৯০০ টাকা। 

৪.বাজাজ ডিস্কোভার ১২৫(Bajaj Discover 125)

বাজাজ ডিসকভার ১২৫ ছাড়াও এই সেগমেন্টে আরো অনেক গুলি কোম্পানির বাইক রয়েছে তার মধ্যে বাজাজ ডিসকভার ১২৫ বাংলাদেশের জনপ্রিয় একটি বাইক। এই বাইকের মেনটেনেন্স খরচ যেমন কম তেমনি এই বাইকের মাইলেজ ও বেশি। তাছাড়া যারা সর্বদা কম খরচে বেশি দূরত্বে যাতায়াত করতে পছন্দ করে তাদের জন্য বেশ উপযোগী একটি বাইক হতে পারে বাজাজ ডিসকভার ১২৫।

বাজাজ ডিস্কভার ১২৫ বাইকটি ১২৫সিসি সেগমেন্টের কমিউটার বাইক। বাইকটিতে রয়েছে ১২৫ সিসি ফোর স্ট্রোক , এয়ারকুল্ড ইঞ্জিন । বাইকটির সামনে ডিস্ক ব্রেক ও পেছনে ড্রাম । এছাড়া এর ড্যাশ বোর্ড হচ্ছে ডিজিটাল ড্যাশ বোর্ড এর সাথে আছে এনালগ রেভ কাউন্টার ।

বাজাজ ডিস্কোভার ১২৫ ডিস্ক মডেলের বাইকটির বর্তমান বাজার মূল্য ১,৩৩,৫০০ হাজার টাকা মাত্র।

৫.কে টি এম আরসি ১২৫(KTM RC 125)

কেটিএম আরসি ১২৫ অস্ট্রিয়ান বাইক প্রস্তুতকারক কেটিএম এজির স্পোর্টস বাইক। ভারতের বাজাজ অটো যৌথ ভাবে বাইকটি উৎপাদন করে থাকে। কেটিএম আরসি ১২৫ স্পোর্টস বাইকের জগতে ১২৫ সিসি সেগমেন্টের একটি স্বল্প সিসির স্পোর্টস বাইক। ভীষণ আগ্রাসী চেহারার এই বাইক স্পোর্টস বাইক প্রেমিকদের দারুণভাবে আকর্ষণ  করে। কেটিএম আরসি ১২৫ ইঞ্জিনের ধরন লিকুইড কুল্ড, ৪ স্ট্রোক, সিঙ্গেল সিলিন্ডার, ৪ ভালভ এবং ইঞ্জিন ডিসপ্লেসমেন্ট ১২৪.৭ সিসি। ইঞ্জিনের সর্বোচ্চ ক্ষমতা ১১ কে ডাব্লিউ এবং সর্বোচ্চ ঘূর্ণন বল ১২ এনএম। ইঞ্জিনের পাওয়ার ট্রান্সমিশনে রয়েছে ৬ স্পীড গিয়ার বক্স। বাইকের নিয়ন্ত্রণ আয়াত্বে রাখতে ও রাইড আরামদায়ক করতে কেটিএম আরসি ১২৫ স্পোর্টস বাইকের সামনের দিকে আপসাইড ডাউন সাসপেনশন ও পেছনে মনোশক অ্যাবজরবার দিয়ে সাজানো হয়েছে। ব্রেকিং সিস্টেম স্পোর্টস বাইকের জন্য অত্যন্ত উপযোগী করেই ডুয়াল চ্যানেল এন্টিলক ব্রেকিং সিস্টেম দিয়ে গঠন করেছে প্রস্তুতকারক কেটিএম। আরামদায়ক রাইডিং পজিশন বিপুল তথ্যবহুল কনসোল প্যানেল সহ দারুণ সব ফিচার রয়েছে স্পোর্টস বাইকটিতে। কেটিএম আরসি ১২৫ স্পোর্টস বাইকের গড় মাইলেজ প্রতি লিটার জ্বালনিতে ৪০ কিলোমিটার এবং সর্বোচ্চ গতি ১১০ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টা।

কেটিএম আরসি ১২৫ বর্তমান বাজারমূল্য ৪,৭০,০০০ টাকা