ছারছিনা দরবার শরীফ - Charachina Darbar Sharif
Charachina Darbar Sharif

ছারছিনা দরবার শরীফ - Charachina Darbar Sharif

ছারছিনা দরবার শরীফ বা ছারছিনা দারুচ্ছুন্নাত বাংলাদেশের একটি আধ্যাত্মিক শিক্ষাকেন্দ্র, অন্যতম দরবার শরীফ ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান। এটি পিরোজপুর জেলার নেছারাবাদ উপজেলার স্বরূপকাঠী শহরের উত্তর পাশে ছারছিনা নামক গ্রামে অবস্থিত। ১৮৯০ সালে একই গ্রামের আধ্যাত্মিক নেতা ও পীর মাওলানা নেছারউদ্দীন আহমদ এটি প্রতিষ্ঠা করেন। দরবারটি ইসলাম প্রচার ও প্রসারের জন্য বাংলাদেশ সহ ইসলামি বিশ্বে সুপরিচিতি অর্জন করেছে। প্রতি বছর দরবারের মাহফিলে কয়েক লক্ষ ভক্তের উপস্থিতি হয়। দরবার শরীফের বর্তমান পীর মাওলানা শাহ মোহাম্মদ মোহেব্বুল্লাহ।

অবদান

এই দরবারের প্রধান পীর নেছারুদ্দিন সারাজীবন ইসলামের খেদমত করে প্রায় অগণিত মুরিদ করেছিলেন, ১৯৫০ সালে এদের মধ্যে বাছাইকৃত ১৪০১ জন মুরিদকে সাথে নিয়ে হজ্ব যাত্রায় রওনা দেন।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

১৯১২ সালে নেছারুদ্দিন কেরাতিয়া নামে একটি মক্তব প্রতিষ্ঠা করে, পরবর্তীতে ১৯৩১ সালে এটি ছারছিনা দারুসুন্নাত আলিয়া মাদ্রাসায় পরিণত হয়। প্রথম পীর নেছার উদ্দীন মাদ্রাসার জন্য মঈনুদ্দীন চিশতি হল হল, আলফেসানী হল ও নেছার হল প্রতিষ্ঠা করেন। দ্বিতীয় পীর আবু জাফর মোহাম্মদ সালেহ প্রায় ৩ হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছিলনে, তিনি ইসলামী আরবি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার আন্দোলন ও ইবতেদায়ী মাদরাসার জন্য সংগ্রাম করেছেন। ৩য় পীর মোহেবুল্লাহ দারুল উলুম নেছারিয়া কদীম নেসাবি মাদ্রাসা নামে একটি কওমি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেন।

প্রকাশনা

নেছারুদ্দিন ইসলামি শিক্ষা সবার নিকটে পৌঁছে দিতে ১৯৪৯ সালেপাক্ষিক তাবলীগ নামে একটি পত্রিকা বের করতেন। তার পরবর্তী পীরগনও দরবার শরীফের নামে এই পত্রিকা প্রকাশের উদ্যোগ নিয়েছে।

সামাজিক উন্নয়ন

১৯৪১ সালে নেছারুদ্দিন বাঙালি হজ্ব যাত্রীদের জন্য জন্য একটি রিলিফ ফান্ড গঠন করেন, এই ফান্ড থেকে নেছারিয়া মুসাফিরখানা প্রতিষ্ঠা করা হয়। এরপর একই পীর ১৯৪৩ সালে জমাইয়েতে হিযবুল্লাহ নামে একটি ইসলামি সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন। এছাড়াও ১৯৪৫ সালে মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের সুন্নাহ অনুযায়ী আমল করার জন্য কেবলা সুন্নাহ বোর্ড গঠন, ও শিক্ষার্থীদের আত্মকর্মসংস্থান ব্যবস্থার জন্য তাত শিল্প গড়ে তুলেছিলেন।

বর্তমান পীর মোহেব্বুল্লাহ একটি সরকারি মিনি হাসপাতাল, পূবালী ব্যাংক, অডিটোরিয়াম, ডাকবাংলা ও মাহফিলের জন্য বিশাল মাঠ, অজু-গোসলের জন্য কৃত্রিম জলাধার-ফোয়ারা প্রভৃতি প্রতিষ্ঠা করেন।

মাহফিল

প্রতিবছর বাংলাবর্ষ ১৪, ১৫ ও ১৬ অগ্রহায়ণ (১০-১২ মার্চ) এবং ২৭, ২৮, ২৯ ফালগুন (২৮ নভেম্বর-১ ডিসেম্বর) মাসে দরবারে মাহফিলের আয়োজন হয়ে থাকে, সাম্প্রতিক ২০২১ সালে ১৩১তম মাহফিল অনুষ্ঠানের আয়োজন হয়েছিলো। এই মাহফিলে কয়েক লক্ষ মানুষের সমাগম হয়ে থাকে। এই মাহফিলে ইসলামি আকিদা, আমল ও সাম্প্রতিক বিষয় সম্পর্কে ওয়াজ করা হয়। সবসময় এই মাহফিলের সাথে সাথে বাংলাদেশ জমইয়াতে হিযবুল্লাহ নামক সংগঠনের সম্মেলনের আয়োজন হয়ে থাকে।