পানি পানে বিশ্বনবি যে আমল করতেন - Biswanabi used to drink water

যেভাবে পানি পান করা সুন্নত-How to drink water is Sunnah

আল্লাহর নেয়ামতের অভাব নেই। তিনি কত নেয়ামত ও অনুকম্পা দিয়েছে যে আমাদের জীবন সহজ ও স্বাভাবিক করেছেন, তার কোনো শেষ নেই। সারাজীবন শুকরিয়া আদায় করলেও তার নিয়ামতের কৃতজ্ঞতা আদায় হবে না।

আল্লাহ তাআলা পবিত্র কোরআনে বলেন, ‘তোমরা যে পানি পান কর, সে সম্পর্কে কি তোমরা চিন্তা করেছ? তোমরাই কি তা মেঘ হতে নামিয়ে আন, না আমি তা বর্ষণ করি? আমি ইচ্ছে করলে— তা লবণাক্ত করে দিতে পারি। তবুও কেন তোমরা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ কর না? (সুরা ওয়াক্বিয়া, আয়াত : ৬৮-৭০)।

অন্য সবকিছুর মতো পানিও আল্লাহ তাআলার অপার এক নিয়ামত। পানি মানুষের জীবন বাঁচিয়ে রাখে। আল্লাহ তাআলা আরও ইরশাদ করেছেন, ‘আর আমি প্রাণবান সবকিছু সৃষ্টি করলাম পানি থেকে— তবুও কি তারা ঈমান আনবে না? (সুরা আম্বিয়া, আয়াত : ৩০)

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের বাস্তব জীবনের এ আমলগুলো উঠে এসেছে হাদিসের বর্ণনায়। আমলগুলো হলো-

পানি পানের শুরুতে ‘বিসমিল্লাহ’ বলা

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, যখন তোমরা পানি পান করতে যাবে তখন প্রথমেই ‘বিসমিল্লাহ’ পড়বে।’ (তিরমিজি)

শুধু পানি পানের সময়ই নয়, বরং যে কোনো কিছু খাওয়ার সময় এবং ভালো যে কোনো কাজের শুরুতে ‘বিসমিল্লাহ’ বলতে হবে।

সবসময় ডান হাতে পানি পান করা

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘কখনো খাবার এবং পানীয় বাম হাতে গ্রহণ করবে না। কেননা শয়তান বাম হাতে খাবার গ্রহণ করে।’ (মুসলিম)

সব ভালো কাজে ‘বিসমিল্লাহ’ বলার মতো ভালো কাজে ডান হাত ব্যবহার করাও উত্তম। এমনকি পোশাক পরার সময়ও আগে ডান দিক থেকে শুরু করা। আর ডান দিক থেকে শুরু করতে হলে ডান হাতই ব্যবহার করতে হয়।

সবসময় বসে পানি পান করা

হাদিসের বিখ্যাত গ্রন্থ মুসলিমে এসেছে, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, (আগে) বসুন এবং পানি করুন।’

স্বাস্থ্য বিজ্ঞানের মতেও এটি সর্বজন বিদিত যে, দাঁড়িয়ে পানি পান করার চেয়ে বসে পানি পান করা বেশি ভালো। আ বসে পানি পান করা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের অন্যতম সুন্নাত।

৩ নিঃশ্বাসে পানি পান করা

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, তোমরা কখনো এক নিঃশ্বাসে পানি পান করোনা। বরং তোমরা দুই কিংবা তিন নিঃশ্বাসে পানি পান করো।

অনেককেই দেখা যায়, পানি পান করার সময় ইচ্ছায়, অনিচ্ছায় এক নিঃশ্বাসে মগ কিংবা গ্লাসে পুরো পানি পান করে থাকে। আবার অনেকে পানিও পান করতে থাকে আর নিঃশ্বাস ফেলতে থাকে। এর কোনোটিই ঠিক নয় বরং সুন্নাত বিরোধী কাজ। তাই পানি পানের সময় অল্প অল্প করে ২/৩ বারে পানি পান করা। স্বাস্থ্য বিজ্ঞানেও এটি উপকারী।

গ্লাসের পানিতে নিঃশ্বাস না ছাড়া

তিবরানিতে এসেছে, ‘পানি পান কিংবা খাবার গ্রহণের সময় মুখ থেকে পানি কিংবা খাবারে নিঃশ্বাস না ছাড়া।’

চিকিৎসা বিজ্ঞানে বিষয়টি সুস্পষ্ট করা হয়েছে যে, অনেক সময় মুখে অনেক বা মুখের সামনে অনেক ব্যাকটেরিয়া বা জীবানু থাকে। পানি বা খাবারে ফুঁ দেয়া বা নিঃশ্বাস ফেলানোর ফলে এ জীবানু ব্যাকটেরিয়া পানি ও খাবারের সঙ্গে মানুষের শরীরে প্রবেশ করে। আর তাতে ক্ষতির সম্মুখীন হয়।

সবসময় পানি পানের পর ‘আলহামদুলিল্লাহ’ পড়া

পানি পানের পর আল্লাহর শুকরিয়া আদায় স্বরূপ সবসময় ‘আলহামদুলিল্লাহ’ বলা। সুন্দর ও নিরাপদভাবে খাবার ও পানীয় গ্রহণের পর আল্লাহর প্রশংসামূলক বাক্য ‘আলহামদুলিল্লাহ’ বলায় তারই কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করা হয়।

পানি পান করার দোয়া কি?

পানি পান করার শুরুতে এই দোয়া পড়তে হয়-

بِسْمِ اللّه الرَّحْمنِ الرَّحِيْمِ

উচ্চারণঃ- বিস্মিল্লাহির রাহমানির রাহীম।

পান করা শেষ হলে এই দোয়া পড়তে হয়-

اَلْحَمْدُ لِلّهِ الَّذِيْ جَعَلَه عَذْبًا فُرَاطًا بِرَحْمَتِه وَ لَمْ يَجْعَلْه مِلْحًا اُجَاجًا بِذُنُوبِنَا

উচ্চারণঃ- আল্হামদুলিল্লাহীল্লাজী জা‘আলাহু আ‘জবান ফুরাতান ওয়া লাম ইয়াজআ‘ললাহু মিলহান উজাজান।

চা, কফি, ঠান্ডা ইত্যাদি পানীয় পান করার সময় পড়তে হয়-

اَللّهُمَّ بَارِكْ لَنَا فِيْه وزِدْنَا مِنْه

উচ্চারণঃ- আল্লাহুম্মা বারিকলানা ফীহী ওয়াজিদনা মিনহু।

যমযমের পানি কিবলামূখী হয়ে পান করার সময় এই দোয়া পড়তে হয়-

اَللهُمِّ اِنّيْ اَسْأَلُكَ عِلْمًا نَافِعًا وَرِزْقًا وَاسِعًا وَشِفَاءً مِنْ كُلِّ دَاءٍ

উচ্চারণঃ- আল্লাহুম্মা ইন্নী আ‘সআলুকা ই‘লমান নাফি‘আ ওয়া রিজকান ওয়াছি‘আ ওয়া সিফাআম মিন কুল্লি দায়ীন।

তথ্যসূত্র: জাগোনিউজ

https://www.dhakapost.com

www.bissoy.com