বাংলাদেশে রেকর্ড ছুঁয়েছে ইমোর ব্যবহার

বার্ষিক এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, গত বছর তাদের অ্যাপ ব্যাবহার করে বাংলাদেশিদের পাঠানো মেসেজের সংখ্যা বেড়েছে ৮ শতাংশের বেশি।


বাংলাদেশি ইমো ব্যবহারকারীরা বছরজুড়ে সাড়ে নয় হাজার কোটির বেশি মেসেজ এবং আড়াই হাজার কোটির বেশি অডিও-ভিডিও কল করেছে। এর মধ্যে তিন হাজার কোটির মত রয়েছে আন্তর্জাতিক মেসেজ আর দেড় হাজার কোটির বেশি আন্তর্জাতিক অডিও-ভিডিও কল করেছে।

মেসেজিং অ্যাপ কোম্পানিটি এক বিবৃতিতে বলছে, বিশ্বে বাংলাদেশেই ইমোর সবচেয়ে বেশি ব্যবহারকারী। গত ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত বাংলাদেশে তিন কোটি সত্তর লাখ বার এটি ইন্সটল করা হয়েছে।


ইমো'র ভাইস প্রেসিডেন্ট বাংলাদেশিদের এই প্রবণতাকে 'অভূতপূর্ব' বলে উল্লেখ করেছেন।


মূলত বিভিন্ন দেশে কর্মরত বাংলাদেশের অভিবাসী কর্মী ও তাদের পরিবারের সদস্যদের কাছে ইমো অনেক বেশি জনপ্রিয়। মোবাইল ফোনে ইমো ইন্সটল করা থাকলেই যে কোন অভিবাসী কর্মী ও তাদের আত্মীয় স্বজনদের সাথে কথা বলা যাবে।


যে পাঁচটি দেশের সাথে সবচেয়ে বেশি বার্তা আদান প্রদান হয় তার মধ্যে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে ওমান ৩য় মালয়েশিয়া, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও কাতার। সবগুলো দেশই বাংলাদেশে অভিবাসী কর্মীদের পছন্দের গন্তব্য।


ইমোর ব্যাবহারের জনপ্রিয়তার শুরু মধ্যপ্রাচ্যে। এর একটি বড় কারণ হল মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে বিশ্বের অন্যান্য জনপ্রিয় যেসব মেসেজিং অ্যাপ রয়েছে সেগুলোর ব্যাবহার নিষিদ্ধ। বাংলাদেশের অভিবাসীদের তাই ইমো ব্যবহার করতে হচ্ছে। আর বাংলাদেশেও তাই তাদের আত্মীয়দের ইমো ইন্সটল করতে হচ্ছে।


তবে অ্যাপটি ইন্সটল করা মাত্রই একের পর এক বিরতিহীন নোটিফিকেশন আসতে থাকে। অপরিচিত লোকজনের কাছ থেকে মেসেজ আসে, তারা এখন ইমোতে আছেন, কেউ ইমো ব্যাবহার শুরু করেছেন সেসব তথ্য ছবিসহ দেখা যায়।নআপনি চেনেন না, আপনার ফোনে যার নম্বর নেই তাদের কাছ থেকেও মেসেজ আসে।


গ্রামীণফোনের চিফ ডিজিটাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজি অফিসার সোলায়মান আলম বলছেন, "এগুলো খুব সহজেই নিয়ন্ত্রণ করা যায়। অন্যসব অ্যাপের মতো ইমোর সেটিংস-এ গিয়ে মাত্র দশ পনের মিনিট সময় ব্যয় করলেই আপনি নিজেকে নিরাপদ করতে পারেন। এসব নোটিফিকেশন বন্ধ করতে পারেন, প্রাইভেসি বাড়িয়ে নিতে পারেন।


এটা হয়ত অনেকেই করেন না, জানেন না অথবা প্রয়োজন আছে বলে মনে করেন না। বিষয়টি ব্যবহারকারীর উপর নির্ভর করে।



পরবর্তী খবর পড়ুন : বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ(বিজিবি) নিয়োগ ২০২১