বঙ্গবন্ধু ম্যারাথনে ঢাকার দৌড়বিদরা অংশ নিচ্ছেন
স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস কে কেন্দ্র করে ২০০ জনেরও বেশি দৌড়ক "বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন" -তে অংশ নিয়েছেন।

১০ জানুয়ারি ২০২১, রবিবার সকাল ৬ ঘটিকায় ঢাকা আর্মি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান।

তিনি বলেন, "২০২১ সালের বিশ্বব্যাপী সবচেয়ে বড় ক্রীড়া ইভেন্ট বঙ্গবন্ধু ম্যারাথন। এই ইভেন্টটি খেলাধুলার অঙ্গনের এক মাইলফলক হবে বলে তিনি আশাবাদী। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ সম্পর্কিত জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটি, সশস্ত্র বাহিনী, বাংলাদেশ অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশন এবং বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনকে ম্যারাথন আয়োজন করার জন্য ধন্যবাদ জানান।


উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল।


এই ইভেন্টে বাংলাদেশি অংশগ্রহণকারীরা ছাড়াও ফ্রান্স, কেনিয়া, ইথিওপিয়া, বাহরাইন, বেলারুশ, ইউক্রেন এবং মরক্কোর রানাররা এবং মালদ্বীপ, নেপাল, ভারত, লেসোথো এবং স্পেনের কমপক্ষে ৩৭ জন অ্যাথলেট ম্যারাথনে অংশ নিচ্ছেন।

ইভেন্টটি তিনটি ভাগে বিভক্ত হয়েছে - সম্পূর্ণ ম্যারাথন, হাফ ম্যারাথন এবং ডিজিটাল ম্যারাথ।

দেশ-বিদেশের প্রায় ১০০ জন রানার ৪২.১৯৯ কিলোমিটার পূর্ণ ম্যারাথনে এবং ১০০ জন ২১.০৯৭ কিলোমিটার হাফ ম্যারাথন অংশ নিচ্ছেন।

বিদেশী ক্রীড়াবিদদের মধ্যে ১৭ জন 'এলিট' শ্রেণিতে এবং ১২ জন 'সাব-এলিট' শ্রেণিতে।


আন্তঃ পরিষেবা পাবলিক রিলেশন বা আইএসপিআর অনুসারে বাংলাদেশি অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে সেনাবাহিনী ও আনসার সদস্যদের সাথে সাধারণ রানারও অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।


আর্মি স্টেডিয়ামে সকাল ৬ঃ৩০ মিনিটে শুরু হয়ে ম্যারাথনটি বনানী ও গুলশান হয়ে হাতিরঝিলে পৌঁছবে, যেখানে হাফ ম্যারাথনটি দুটি রাউন্ডের পরে এবং পুরো ম্যারাথনটি পাঁচ রাউন্ডের পরে শেষ হবে।


সেনা প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ সকাল ১১ টায় সমাপনী অনুষ্ঠানে অংশ নেন।


আয়োজকরা ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মে একটি ডিজিটাল ম্যারাথন সজ্জিত করেছেন যেখানে বিশ্বের যে কোনও ব্যক্তি নিখরচায় ৫ কিলোমিটার নিবন্ধন করতে এবং চালাতে পারবেন।


রানারদের স্থানীয়দের জন্য ১০০ এবং ২০ টাকা এবং বিদেশিদের জন্য ৫ ডলার দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করার জন্য একটি মোবাইল অ্যাপ চালু করা হয়েছে।

পুরুষ এবং মহিলা উভয়ের জন্য বিদেশি অভিজাত শ্রেণিতে পূর্ণ ম্যারাথনের চ্যাম্পিয়নরা ১৫,০০০ ডলার ব্যাগ করবে।

পুরুষ ও মহিলা বিভাগে বাংলাদেশ এবং সার্কের বিজয়ীদের জন্য পুরষ্কারের পরিমাণ পাঁচ লাখ টাকা।

সমস্ত বিভাগে পঞ্চম স্থান অর্জনকারী রানাররা পুরষ্কারের জন্য যোগ্য।



পরবর্তী খবর পড়ুন : চরফ্যাসনে স্ত্রীর দায়ের করা মামলায় ব্যাংক কর্মকর্তা কারাগারে