মেয়েদের ব্রেস্ট ঝুলে যাওয়ার কারণ - Causes of sagging breasts in girls

মেয়েদের ব্রেস্ট ঝুলে যাওয়ার কারণ - Causes of sagging breasts in girls

অধিক চিন্তা, দীর্ঘক্ষণ কাজ, লম্বা সফরের কারণে নারীদের বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। এ ছাড়া হরমোনাল সমস্যার কারণে স্থুলতা, মেদের কারণে সমস্যা দেখা দেয় স্তনেও। স্তন ঝুলে যাওয়া নারীদের সবচেয়ে বড় সমস্যা। সন্তান প্রসবের পরও অনেক নারীর স্তন ঝুলে যায়। আরও কয়েকটি সমস্যা বিশেষজ্ঞরা আরও কয়েকটি সমস্যা নির্দিষ্ট করেছেন, যা হলো- বয়স, ওজনের পরিবর্তন, ধূমপান করা, পর্যাপ্ত সাপোর্ট ছাড়াই ভারী কাজ করার কারণে স্তন বড় হয়ে ঝুলে যায়।

মেয়েদের স্তন ঝুলে যাওয়ার কারণ

১. কারও যদি বয়সের সাথে শরীরের ওজনের সামঞ্জস্য না থাকে অর্থাৎ ওজন বেড়ে গেলে স্তন ঝুলে পড়ে। কিশোরী বয়সের যারা আছে তাদের যদি মোটা হওয়ার প্রবণতা দেখা যায় তবে স্তন ঝুলে পড়বে।

২. অপরিণত কিংবা পরিণত বয়সে সন্তান গর্ভধারণ করলেও স্তন ঝুলে পড়তে পারে। তবে অপরিণত বয়সে ব্যাপারটা অধিক ঘটে। বিশেষ করে ১২ থেকে ১৭ বয়সী কোনো মেয়ে যখন গর্ভে সন্তান ধারণ করে তখন এমনটা বেশি ঘটতে পারে।

৩. বংশে যদি কারও স্তন ঝুলে পড়ার ইতিহাস থাকে তবে বংশধরদের মধ্যে এরকম হতে পারে। কারণ, স্তন ঝুলে পড়ার সাথে হরমোনাল ব্যাপার জড়িত থাকে।

৪. ধুমপান কিংবা বিভিন্ন নেশা নিয়মিত গ্রহণ করলে স্তন কখনোই ঠিক থাকবে না। বয়স হওয়ার আগেই স্তন ঝুলে পড়বে।  কেননা, ধুমপান করলে মেয়েদের শরীরের ইলাস্টেন হরমোনের উপর বিরূপ প্রভাব পড়ে। ইলাস্টেন ধীরে ধীরে ভেঙে যায়।

৫. কোনো মেয়ে যদি তার স্তনের আকার অনুযায়ী সঠিক আকারের ব্রা না পড়ে তবে এক্ষেত্রেও তার স্তন ঝুলে পড়ার আশঙ্কা থাকে।

৬. স্বাভাবিক আকারের চেয়ে কারও স্তন যদি অধিক বড় হয়ে যায় তবে সেক্ষেত্রেও স্তন নিচের দিকে ঝুলে পড়বে। কারণ, একজন মেয়ের পক্ষে সেই স্তনে সব সময় ব্রা পড়ে থাকা অসম্ভব। ওজন বেশি হলে তা স্বাভাবিকভাবেই নিচের দিকে ঝুলে পড়বে।

৭. যারা বিভিন্ন খেলাধুলা করে, শারিরীক ব্যায়াম করে, কায়িক পরিশ্রম করে তাদের স্তন ঝুলে পড়ে। তবে সঠিক আকারের ব্রা পরিধান করে থাকলে এটা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব।

৮. বয়স বাড়ার কারণে স্তন ঝুলে পড়ে। তবে এটা অবশ্যই অন্তত ৩০ বছরের পর থেকে। কিন্তু ৩০ বছরের আগেই যদি কারও স্তন অনেকটা ঝুলে পড়ে তবে এটা বিশেষ কোনো সমস্যার কারনে হয়েছে। চিকিৎসা নিলে বা নিয়ম মেনে চললে এ সমস্যা রোধ করা সম্ভব।

৯. বিশ্বের বিভিন্ন গবেষনা প্রতিষ্ঠান থেকে জানা যায়, যারা সঠিক খাদ্যাভ্যাস এবং পর্যাপ্ত ঘুমে অভ্যস্ত নয় তাদের এমন সমস্যা হতে পারে। ব্রা ব্যবহার করলেও ঝুলে পড়বে।

১০. কোনো মেয়ে যদি বার বার সন্তান ধারণ করে তার ক্ষেত্রে এমন হতে পারে। অর্থাৎ ৫ বছরে কেউ যদি ৩ সন্তানের মা হয়ে যান তবে তার ক্ষেত্রে স্তন ঝুলে যাওয়াটা স্বাভাবিক ব্যাপার।

সমাধান

স্তন যদি ঝুলে গিয়েই থাকে, তাহলে তাকে ফিট রাখার উপায়ও আছে। জেনে নিন কয়েকটি উপায়:

সঠিক ব্রা ব্যবহার:

আপনি অবশ্যই এমন ব্রা পরুন যা আপনার স্তনকে সম্পুর্ন সাপোর্ট দেয়। লক্ষ রাখতে হবে আপনার ব্রা অবশ্যই আপনার সাথে সাবলীল ভাবে চলতে পারে- অর্থাৎ চলার সময় আপনার ব্রা লেইস যেন কাঁধ থেকে খসে না পড়ে অথবা বন্ধনি অতিরিক্ত টাইট কিংবা অতিরিক্ত লুজ না হয়। যখন ব্রা সাইজ নেবার জন্য মাপতে যাবেন, অবশ্যই খেয়াল রাখবেন আপনার পুরাতন ব্রা পরনে থাকতে হবে এবং সে অবস্থায় স্তনের ঠিক নিচে মাপ নিচ্ছেন। এছাড়া কিছু ব্যায়ামও করতে পারেন-

মেডিসিন বল স্ল্যাম:

দু’হাতে একটা মেডিসিন বলকে ধরুন। মাথার ওপরে বলটা ধরে তুলুন। হাঁটু সামান্য ভাঁজ করতে পারেন। এবার বলটাকে যত জোরে সম্ভব মাটিতে আছড়ে ফেলুন। আবার তুলে তিনটে সেটে করে মোট তিনবার করুন। আপনি বলটাকে যখন মাটিতে আছড়ে ফেলবেন,তখনই কিন্তু আপনার বুকের ব্যায়াম হয়। যত জোরে আছড়ে ফেলবেন,ততই বেশি আপনার পেশী কাজ করবে। তাই বুকের পেশীকে টোন করতে এই ব্যায়ামটা করেই ফেলুন নিয়ম করে।

পুশ আপস:

ঝুলে যাওয়া স্তনকে আবার তার টোনড শেপে ফিরিয়ে আনতে পুশ আপস কিন্তু বেশ কার্যকরী। উপুড় হয়ে সোজা হয়ে শোন। হাত দুটো বগলের পাশে ভাঁজ করে রাখুন। পেটটা টান করে রাখবেন। এবার হাতের ওপর ভর দিয়ে পুশ আপস করুন। যতবার পারেন,ততবারই করবেন। নিয়ম করে করুন। আপনার স্তনকে টোনড করতে শুধু নয়, কাঁধের পেশীকে শক্তিশালী করতেও এই পুশ আপস দারুণ কাজ দেয়।বাড়িতে বসে খুব সহজেই করতে পারবেন।

ট্রাইসেপ ডিপস:

একটা বেঞ্চে বসে হাত দুটো আপনার পাশে রাখুন। পা ছড়িয়ে টান করে রাখুন। এবার হাতদুটো আগের জায়গাতেই রেখে বেঞ্চ থেকে নিজেকে তুলুন। আস্তে আস্তে কনুই ভাঁজ করে নিজেকে মেঝের কাছে নিয়ে যান। এভাবে যতক্ষণ পারবেন করুন। আস্তে আস্তে সময় বাড়াবেন। এভাবে নিয়মিত করবেন। এই ব্যায়াম আপনার ট্রাইসেপের ওপর জোর দিলেও বুকের পেশী আর হাতের মাসলকেও কিন্তু টোনড রাখতে সাহায্য করে। আর বাড়িতে করাও খুব সোজা।

ডাম্বেল ফ্লাইস:

সোজা হয়ে শুয়ে পরুন। এবার হাতদুটোকে কনুই ভাঁজ করে বুকের কাছে এনে রাখুন। দু’হাতে দুটো ডাম্বেল যেন থাকে। বেশি ওজন তোলার দরকার নেই। হাঁটু ভাঁজ করে রাখবেন। এবার হাতদুটো ছড়িয়ে সোজা করে আস্তে করে খুলুন। আবার আগের ভাঁজ করা অবস্থায় আনুন। এভাবে যতক্ষণ পারবেন করুন। বুকের পেশীকে টান করে ঝোলা স্তনকে নিজের শেপে ফিরিয়ে আনতে এই ব্যায়াম ট্রাই করুন।

মেডিসিন বল পুশ আপস:

পুশ আপ পোজিশনে শোন। তবে এবার মাটিতে হাত রাখার বদলে হাত দুটো একটা মেডিসিন বলের ওপরে রাখুন। এবার পুশ আপ করতে শুরু করুন। একটা হাত মাটিতে আর একটা হাত বলের ওপরে আধা মিটার দূরত্বে রেখে পুশ আপ করুন। ১০-২০ বার করে তিনটি বা চারটি সেটে কমপ্লিট করুন। নিয়ম করে করবেন। ঝুলে যাওয়া স্তনকে টোনড অ্যান্ড ফিট করার জন্য এটি পারফেক্ট ব্যায়াম। আর ঘরে বসেই সহজে করতে পারবেন। তাহলে এবার দেরি না করে আজ থেকেই শুরু করুন নিজেকে পারফেক্ট শেপে ফিরিয়ে আনার অভিযান।