লিভার ক্যান্সারের কারন ও লক্ষন

লিভার দেহের একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। লিভার শরীরের বিভিন্ন কাজে প্রধান ভূমিকা পালন করে। একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের ক্ষেত্রে লিভারের ওজন প্রায় এক দশমিক ৫০ কেজি। সাধারণত দুই ধরনের কোষ দিয়ে লিভার গঠিত হয়। এগুলো হলো  প্যারেনকাইমাল ও নন-প্যারেনকাইমাল। দেহকে সুস্থ্য ভাবে কার্যক্ষম রাখার জন্য এই লিভারকে অনেক কাজ করতে হয় যেমন খাদ্য হজম করতে, গ্লাইকোজেনের সঞ্চয়, প্লাজমা প্রোটিন সংশ্লেষণ, ঔষুধ বা অন্যান্য রাসায়নিক নির্বিষকরণ, পিত্তরস উৎপাদন, রক্ত পরিস্রুত করণ ইত্যাদি।

কথায় বলতে গেলে লিভার হলো মানব দেহের একটি পাওয়ার স্টেশন যার সুস্থতার উপর আমাদের দেহের অন্যান্য অনেক কিছুই নির্ভর করে।

লিভার ক্যান্সার ২ ধরনের -১.প্রাইমারি লিভার ক্যান্সার ২.ট্রান্সফারড লিভার ক্যান্সার ।তবে প্রাইমারি লিভার ক্যান্সারই বেশি দেখা যায় ।

লিভার ক্যান্সারের কারনঃ

১. র্দীঘস্থায়ী হেপাটাইটিস বি এবং সি এর সংক্রমণের কারনে হয়ে থাকে ।

২.ডায়াবেটিস থাকলেও লিভার ক্যান্সার হতে পারে ।

৩.লিভারে চর্বি জমে লিভার ক্যান্সার হতে পারে ।

৪. র্দীঘদিন ধুমপান,অ্যালকোহল অত্যধিক গ্রহণ করলেও হতে পারে ।

৫.দূষিত পানি পান করলে লিভার ক্যান্সার হতে পারে ।

৬.লিভার সিরোসিস, পিওথলির পাথরের কারনে হতে পারে ।

৭.র্দীঘদিন ধরে ছএাক যুক্ত খাবার বা পচা খাবার খেলে লিভার ক্যান্সার হতে পারে ।

৮.সেকেন্ডারি লিভার ক্যান্সার কোষের কারনে শরীরের অন্য কোথাও ক্যান্সার থেকে লিভারে ছড়িয়ে পড়তে পাড়ে ।

লিভার ক্যান্সারের লক্ষনঃ

১.লিভার ক্যান্সারের রোগীরা প্রায়ই পেটের ডান পাশে উপরের দিকে অথবা বুকের ঠিক নীচে মাঝ বরাবর ব্যথা অনুভব করেন যার তীব্রতা রোগী ভেদে বিভিন্ন রকম।

২.চোখের সাদা অংশ এবং ত্বকে হলুদ বর্ণহীনতা ।

৩.শারীরিক দুর্বলতার অভিযোগ করে থাকে।

৪.জন্ডিস, খাবারে অরুচি,বদ-হজম হওয়া, বমি বমি ভাব ও বমি, দুর্বলতা ও জ্বর।

৫.মাঝে মাঝে নাক দিয়ে রক্ত পরতে পারে ।

৬.ক্ষুধামান্দ্য,পেটে ফোলা,শরীরের ওজন হ্রাস পাবে ।

৭. কখনও কখনও রোগী ফ্যাটি লিভার রোগের জটিলতা নিয়ে আসতে পারেন (যেমন লিভার সিরোসিস ও তার জটিলতাগুলো, লিভার ক্যান্সার ইত্যাদি।)

৮.পেটফাপা, ওজন কমে যাওয়া আর হালকা জ্বর জ্বর ভাব এ রোগের অন্যতম লক্ষণ।

৯.লিভার ক্যান্সার রোগীদের প্রায়ই জন্ডিস থাকে না, আর থাকলেও তা খুবই অল্প।

১০.রোগীদের খাওয়ায় অরুচি, অতিরিক্ত গ্যাস কিংবা কষা পায়খানার উপসর্গ থাকতে পারে- আবার কখনো দেখা দেয় ডায়রিয়া। পেটে পানি থাকতেও পারে, আবার নাও থাকতে পারে।

লিভার ক্যান্সারের চিকিৎসা ও করণীয়ঃ

লিভার ক্যান্সার নির্ণয়ে সহজ উপায় একটি নির্ভরযোগ্য আল্ট্রাসনোগ্রাম। তবে কখনো কখনো সিটি-স্ক্যানেরও দরকার পরে। রক্তের AFP পরীক্ষাটি লিভার ক্যান্সারের একটি মোটামুটি নির্ভরযোগ্য টিউমার মার্কার। লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত যে কোন ব্যক্তিরই উচিত প্রতি ৬ মাসে একবার AFR ও আল্ট্রাসনোগ্রাম পরীক্ষা করা। তবে লিভার ক্যান্সারের ডায়াগনোসিস কনফার্ম করতে হলে আল্ট্রাসনোগ্রাম গাইডেড FNAC অত্যন্ত জরুরি আর অভিজ্ঞ হাতের সাফল্যের হারও প্রায় শতভাগ। এখানেই শেষ নয়, বরং শুরু। শুরুতে ধরা পরলে আর আকারে ছোট থাকলে অপারেশনের মাধ্যমে এই টিউমার লিভার থেকে কেটে বাদ দেয়া যায়। আর এর জন্য প্রয়োজনীয় কুসা মেশিন ও দক্ষ হেপাটোবিলিয়ারি সার্জন এদেশেই বিদ্যমান। পাশাপাশি আছে বিনা অপারেশনে টিউমার অ্যাবলেশন বা টিউমারকে পুরিয়ে দেয়া। নামমাত্র খরচে আল্ট্রাসনোগ্রাম গাইডে আমাদের দেশে এখন অহরহই লিভার ক্যান্সারের রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি অ্যাবলেশন করা হয়। পাশাপাশি আল্ট্রাসনোগ্রাম গাইডে সস্তায় অ্যালকোহল দিয়েও অ্যাবলেশন বা টিউমার পুড়িয়ে ছোট করে দেয়া সম্ভব। আছে আরও কিছু আশা। যেমন এসেছে আগের চেয়ে অনেক বেশী কার্যকর, কিন্তু অনেক কম পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কেমোথেরাপি জেলোডা ও সুরাফিনেব। এই দুটি ওষুধ আমাদের দেশে তৈরিও হচ্ছে। লিভার ক্যান্সারের রোগীদের চিকিৎসা এদেশে নিয়মিত হচ্ছে।

আসলে আমাদের লিভার সুস্থ রাখতে হলে সচেতনতাই সবচেয়ে বড় চিকিৎসা। যেহেতু লিভারকে বলা হয় শরীরের পাওয়ার হাউস তাই লিভারের অসুস্থতার ফলাফল ক্ষেত্রবিশেষে হতে পারে ব্যাপক ও ভয়াবহ। সঠিক সময়ে সঠিক চিকিৎসার মাধ্যমে অনেক ক্ষেত্রেই সম্পূর্ণ নিরাময় এবং জটিলতামুক্ত থাকা যায়। আশাকরি উল্লেখিত লিভারের জটিল রোগসমূহ, লক্ষণ ও চিকিৎসায় করণীয় বিষয় গুলো আপনাকে লিভারের যত্ন নিতে আরও আগ্রহী করবে।


পরবর্তী খবর পড়ুন : চরফ্যাসন ও মনপুরায় ৩০টি এতিমখানায় এতিমদের দুপুরের খাওয়ালেন এমপি জ্যাকব