পুরুষাঙ্গের শিথিলতা দূর করার উপায়
Erectile dysfunction

পুরুষাঙ্গের শিথিলতা দূর করার উপায়

যৌন অক্ষমতা বলতে এমন সমস্যাকে বোঝায় যা যৌন প্রতিক্রিয়া চক্রের যেকোনো ধাপে ঘটবার কারণে পরিপূর্ণ যৌন তৃপ্তি থেকে সঙ্গীকে বঞ্চিত রাখে।ইরেকটাল ডিসফাংশনকে সরাসরি যৌন অক্ষমতা বলা হয়। যৌন মিলনের জন্য পুরুষের লিঙ্গ উত্থিত না হওয়া বা উত্থান হলেও তা দীর্ঘস্থায়ী না হওয়াকে ইরেকটাল ডিসফাংশন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। রক্ত সঞ্চালনের সমস্যাজনিত রোগ, স্নায়ুবিক সমস্যা, মানসিক কারণ- যেমন চাপ, অবসাদ এবং যৌন সক্ষমতা নিয়ে দুশ্চিন্তা, লিঙ্গে কোন ধরণের আঘাতের কারণে, দুরারোগ্য কোন ব্যাধি, নির্দিষ্ট কিছু ড্রাগ নেওয়াসহ ইত্যাদি কারণে এ সমস্যা হয়ে থাকে পুরুষের। এছাড়া পিরোনির রোগের (লিঙ্গে ত্রুটিযুক্ত টিস্যুর কারণে সমস্যা) কারণে ইরেকটাইল ডিসফাংশন হতে পারে।

পুরুষাঙ্গের শিথিল হওয়ার কারনঃ

১) ঘনঘন হস্তমৈথুন দীর্ঘদিন ধরে চলতে থাকলে তা যে লিঙ্গকে শিথিল করে দেয়, ভুক্তভোগী মাত্রই জানেন।

২)পুরুষ হরমোন টেস্টোস্টেরনের ঘাটতি

৩) লিঙ্গের রক্তসঞ্চালন পথে বাধা

৪)দীর্ঘদিন ধরে থাকা হাইপ্রেসার

৫)শরীরে মেদ বৃদ্ধি

৬)ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবেও লিঙ্গ শিথিল হয়ে, সঙ্কুচিত হতে পারে।

পুরুষের যৌন অক্ষমতার চিকিৎসা

১) বেশিরভাগ যৌন অক্ষমতার চিকিৎসা শারীরিক ও মানসিক চিকিৎসা পদ্ধতির মাধ্যমে সারিয়ে তোলা যায়। পুরুষের শারীরিক কোন সমস্যার কারণে যদি যৌন অক্ষমতার সমস্যা ঘটে তবে চিকিৎসার মাধ্যমে তা সারিয়ে তোলা হয়।

২) লিঙ্গ উত্থানজনিত সমস্যার জন্য কিছু ঔষধ যেমন সিয়ালিস, লেভিট্রা, স্ট্যাক্সিন, স্টেন্ড্রা বা ভায়াগ্রাও প্রয়োগ করা হয়ে থাকে। এসব ঔষধ লিঙ্গে রক্তসঞ্চালন বাড়িয়ে যৌন সঙ্গমের জন্য উত্থিত হতে সাহায্য করে। এছাড়া প্রোমেসেন্ট নামের এক ধরণের ঔষধ অকাল বীর্যপাত রোধে কাজ করে। লিডোকেনসমৃদ্ধ এ ঔষধটি সঙ্গমের আগে লিঙ্গে সরাসরি স্প্রে করতে হয়। এটি দীর্ঘস্থায়ী বীর্যধারনে সাহায্য করে।

৩) হরমোন চিকিৎসাও করা হয়। পুরুষের যৌন ইচ্ছা জাগানোর জন্য দায়ী টেস্টোস্টেরন হরমোন। এ হরমোনজনিত থেরাপি যেমন টেস্টোস্টেরন রিপ্লেসমেন্ট থেরাপি (টিআরটি) করে পুরুষের যৌন সমস্যার সমাধান করা হয়।

৪) একটি পাত্রে সরষের তেল গরম করে, তার মধ্যে বেশি করে কালো জিরে দিন। মিনিট দশেক সময় ধরে তেল ফুটিয়ে, তা ঠান্ডা করে শিশিতে তুলে রেখে দিন। সারাদিনে অন্তত বার তিন-চারেক মালিশ করতে হবে। একটানা অন্তত মাস দুই ধৈর্য ধরে মালিশ করে যান। তাতে লিঙ্গের দৃঢ়তা ফিরে আসবে। 

৫) মানসিক থেরাপি দিয়েও অনেক যৌন সমস্যার সমাধান হয়। প্রশিক্ষিত কাউন্সেলরের সাহায্য নিয়ে উদ্বেগ, ভয় বা অপরাধবোধের কারণে সৃষ্ট যৌন সমস্যার সমাধান করা যায়।

৬) যান্ত্রিক উপকরণ ব্যবহার করে যৌন সমস্যার সমাধান করা সম্ভব। যেমন ভ্যাকুয়াম ডিভাইস ও পেনাইল ইমপ্লিমেন্ট এর মাধ্যমে পুরুষের লিঙ্গ উত্থানজনিত সমস্যা সমাধানে সাহায্য করে। তবে সব চিকিৎসাই চিকিৎসকের পরামর্শমতে গ্রহণ করতে হবে।

৭) কাঁচা রসুন খান নিয়মিত। রসুনের তিন-চারটে কোয়া একসঙ্গে খেয়ে ফেলুন। রসুন টেস্টোস্টেরনের পরিমাণ বাড়াতে সহায়ক। ফলে, টেস্টোস্টেরনের ঘাটতি থেকে শিথিলতা দেখা দিলে, তা থেকে মুক্তি মিলবে।

৮) খেতে পারেন অশ্বগন্ধাও। পুরুষের যৌনক্ষমতা বাড়তে অশ্বগন্ধা ভালো কাজ দেয়।

৯) অ্যালকোহল গ্রহণের পরিমাণ সীমিত করুন।

১০) ধূমপান ছেড়ে দিন। 

১১) যেকোনো ধরণের মানসিক বা আবেগী বিষয় যেমন চাপ, অবসাদ, উদ্বেগ থেকে মুক্ত থাকার চেষ্টা করুন।

পুরুষাঙ্গের শিথিলতা দূর করার যেসব খাবার খেতে হবেঃ

১) গাজরঃগাজরে থাকে প্রচুর পরিমাণে পুষ্টি(Nutrition)। এতে আছে ভিটামিন এ যা ছেলেদের বিশেষ হরমোন তৈরি করতে সাহায্য করে। তাই গাজর খেলে সু-স্বাস্থ্যের পাশাপাশি শারীরিক ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। যার ফলে তাদের দাম্পত্য জীবনে(Conjugal life)নেমে এসেছে অশান্তি। এমনকি অনেকেই এই সমস্যাতে জর্জরিত হয়ে ডিপ্রেশনে চলে গেছে।

২) দুধঃদুধে থাকে ফ্যাট(Fat) যা দাম্পত্য সুখী করতে বিশেষ সাহায্য করে। তাই শরীরে এই বিশেষ হরমোন বৃদ্ধি করার জন্য দুধ(Milk), দুধের সর, মাখন প্রভৃতি খাবারগুলি অপরিহার্য।

৩) রসুনঃনারী ও পুরুষ উভয়ের ক্ষেত্রেই উদ্দীপনা বাড়াতে এবং বিশেষ অঙ্গকে সক্রিয় রাখতে রসুনের(Garlic) তুলনা নেই। রসুনে থাকে এলিসিন নামক এক ধরনের উপাদান যা পুরুষের বিশেষ অঙ্গে রক্ত(Blood) প্রবাহের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়ে। তাই শারীরিক অক্ষমতা থাকলে রসুন(Garlic) খাওয়া উপকারি।

৪) বাদামঃবাদামে থাকে জিঙ্ক যা শুক্রাণুর(Sperm) হার বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। প্রজনন ক্ষমতা ও শারীরিক ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে চিকিৎসকরা বাদাম(Nuts) খাওয়ার পরামর্শ দেন।

৫) আপেলঃদিনে একটা করে আপেল শারীরিক অক্ষমতা(Physical disability) দূর করে, তীব্র উত্তেজিত হতে সাহায্য করবে। আপেলে থাকে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা পুরুষের বিশেষ অঙ্গে রক্ত(Blood)সরবরাহ বাড়ায় এবং দ্বিগুণ ভাবে উত্তেজিত করে তোলে।

৬) মধুঃবিবাহিত পুরুষদের শারীরিক ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে মধুর জুড়ি মেলা ভার। এই বিশেষ শক্তিকে বাড়িয়ে তোলার জন্য এক গ্লাস গরম জলে খাঁটি ১ চামচ খাঁটি মধু(Honey) মিশিয়ে খেতে পারেন।

৭) কলাঃকলা শুধুমাত্র আপনার পুষ্টি(Nutrition) বাড়ায় না আপনার মিলনের শক্তি বাড়িয়ে তুলতেও সাহায্য করে। কলাতে থাকে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম(Potassium) মিলনের সময় শক্তি যোগায়। আছে এক বিশেষ ধরনের এনজাইম ব্রোমেলিয়ান যা পুরুষদের শারীরিক দুর্বলতা(Physical weakness) দূর করতে সাহায্য করে।

ভাল যৌন জীবনের জন্য যৌন স্বাস্থ্য নিয়ে একজন পুরুষ নানাভাবে সচেতন থাকতে পারেন।লিঙ্গ উত্থানজনিত সমস্যার জন্য কিছু ঔষধ যেমন সিয়ালিস, লেভিট্রা, স্ট্যাক্সিন, স্টেন্ড্রা বা ভায়াগ্রাও প্রয়োগ করা হয়ে থাকে। এসব ঔষধ লিঙ্গে রক্তসঞ্চালন বাড়িয়ে যৌন সঙ্গমের জন্য উত্থিত হতে সাহায্য করে। এছাড়া প্রোমেসেন্ট নামের এক ধরণের ঔষধ অকাল বীর্যপাত রোধে কাজ করে। লিডোকেনসমৃদ্ধ এ ঔষধটি সঙ্গমের আগে লিঙ্গে সরাসরি স্প্রে করতে হয়। এটি দীর্ঘস্থায়ী বীর্যধারনে সাহায্য করে।এছাড়া হরমোন চিকিৎসাও করা হয়। পুরুষের যৌন ইচ্ছা জাগানোর জন্য দায়ী টেস্টোস্টেরন হরমোন। এ হরমোনজনিত থেরাপি যেমন টেস্টোস্টেরন রিপ্লেসমেন্ট থেরাপি (টিআরটি) করে পুরুষের যৌন সমস্যার সমাধান করা হয়।মানসিক থেরাপি দিয়েও অনেক যৌন সমস্যার সমাধান হয়।