চরফ্যাসনে ইলিশ মাছ দেয়ার ফাঁদে ফেলে যুবকের টাকা, মোটরসাইকেল ছিনতাই
প্রতীক ছবি

চরফ্যাসনে রাতের আধাঁরে ইলিশ মাছ দেয়ার ফাঁদে ফেলে রফিক নামের এক যুবকের নগদ টাকা, মোটরসাইকেল ছিনতাইয়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুক্রবার রাতে বেতুয়া বেড়িবাধ এলাকার নির্জন স্থানে নিয়ে ওই যুবককে আটকে রেখে মারধর করে টাকা ও মোটরসাইকেল ছিনিয়ে নেয়ার ঘটনা ঘটেছে। এসময় টাকা দিতে অস্বীকার করলে স্থানীয় ৪ ছিনতাইকারী চক্রের সদস্যরা একত্রিত হয়ে তাকে এলোপাতাড়ি মারধর করে। এঘটনায় শনিবার  সন্ধ্যায় মারধরের শিকার রফিক বাদী হয়ে এজহার নামীয় তিন ছিনতাইকারী চক্রের সদস্যসহ অজ্ঞাত  আসামী করে চরফ্যাসন থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। থানা পুলিশ ঘটনায় জড়িত থাকা ছিনতাই চক্রের সদস্য মোরশেদ নামের একজনকে আটক করেছেন।
ছিনতাই ও মারধরের শিকার যুবক রফিক জানান, আসলামপুর ইউনিয়নের পূর্ব পরিচিত মোরশেদ ও শাখাওয়াত শুক্রবার সন্ধ্যায় তাকে সুলভ মুল্যে ইলিশ মাছ কিনে দিবেন এমন লোভ দেখিয়ে মোবাইল ফোনে তাকে বেতুয়া এলাকায় ডেকে নেন। তিনি বোরহানউদ্দিন উপজেলার টবগী ইউনিয়ন থেকে সন্ধ্যার পরে বেতুয়া আসলে  মোরশেদের সঙ্গী  নাঈম, শাখাওয়াত, মিঠু ও আকতারসহ কয়েকজন মিলে তাকে মাছ কিনে দিবেন বলে বিভিন্ন স্থানে ঘুরাতে থাকেন। পরে রাত ১১টার সময় ওই ছিনাতাইকারী চক্রের সদস্যরা বেতুয়া বেড়িবাধ এলাকায় নিয়ে যান। এবং তাকে বেড়িবাধের নির্জন স্থানে নিয়ে আটকে রেখে এলোপাতাড়ি লাঠিঁ দিয়ে বেদড়ক মারধর করেন। এসময় তার কাছে থাকা নগদ ৩০হাজার টাকা ও মোটরসাইকেল ও সোনার চেইন,আংটি ছিনিয়ে নেন। এতে ক্ষান্ত হয়নি ওই চক্রের সদস্যরা । আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে আমার পরিবারের কাছ থেকে বিকাশের মাধ্যমে আরোও ২০হাজার টাকা হাতিয়ে নেন তারা। তাদের মারধরে আমি অচেতন  হয়ে পরলে তারা বাধের ঢালে মসজিদের সামনে আমাকে ফেলে রেখে পালিয়ে যান। পথচারীরা সকালে আমাকে দেখতে পেয়ে উদ্ধার করেন। পরে খবর পেয়ে আমার পরিবারের সদস্যরা এসে আমাকে চিকিৎসার জন্য চরফ্যাসন হাসপাতালে নিয়ে যান।
স্থানীয়রা জানান, আসলামপুর ইউনিয়নের সুদ ব্যবসায়ী নাঈম ,এলাকায় দির্ঘদিন ধরে সুদ ব্যবসার পাশাপাশি মাদক ,জুয়া ও নারী কেলেংকারীর সঙ্গে জড়িত রয়েছে। এবং তার সহযোগী শাখাওয়াত,মিঠু, আকতার ও মোরশেদ তার সহযোগী হিসেবে কাজ করে আসছেন। এলাকায় নানান অপরাধ মূলক কাজে জড়িত থাকায় কেউ প্রতিবাদ করতে সাহস পায়না।
ঘটনার পরপরই অভিযুক্তরা আতœগোপনে থাকায় তাদের বক্তব্য জানাযায়নি।
চরফ্যাসন থানার ওসি মো. মনির হোসেন মিয়া জানান,ছিনতাইয়ের ঘটনায় একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। ঘটনায় জড়িত সন্দেহে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একজনকে থানায় আনা হয়েছে। এঘটনায় তার সম্পৃক্ততা নাই বলে প্রাথমিক ভাবে তথ্য মিলেছে। তবে অভিযোগটি খতিয়ে দেখে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।  


পরবর্তী খবর পড়ুন : খুলনা সিটি কর্পোরেশন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২১