পরজীবী জেগার-Parasitic jaeger
Parasitic jaeger

পরজীবী জেগার বা জলদস্যু পাখি-Parasitic jaeger

পরজীবী জেগার স্কুয়া পরিবারের স্টেরকোরারিডেই একটি সামুদ্রিক পাখি। জলদস্যুদের মতো রুক্ষ্ম আচরণের ফলে এরা জলদস্যু পাখি নামে পরিচিতি পায়। 

ইংরেজি নাম: Parasitic jaeger,Arctic skua, Arctic jaeger or parasitic skua

বৈজ্ঞানিক নাম: Stercorarius parasiticus

বর্ণনাঃ

জলদস্যুদের মতো রুক্ষ্ম আচরণের ফলে এরা জলদস্যু পাখি নামে পরিচিতি পায়। এরা দৈর্ঘ্যে ৪১-৪৮ সেন্টিমটাির। প্রসারিত ডানা ১০৭-১২৫ সেন্টিমিটার। ওজন ৩০০ থেকে ৬৫০ গ্রাম। মাথার রং ধূসর কালো অথবা দুসরাভ-বাদামি। ঘাড় হরিদ্রাভ সাদা। পিঠ ডানা ও লেজ ধূসর কালো। লেজের অগ্রভাগ সুঁচালো। গলা, বুক ও তলপেট হরিদ্রাভ সাদা। ঠোঁটের গোড়া সাদাটে। কালো ঠোঁটের অগ্রভাগ বড়শির মতো বাঁকানো। চোখ বাদামি, পা ও পায়ের পাতা ধূসর কালো। পায়ের পাতা হাঁসের পায়ের মতো জোড়া লাগানো। যুবাদের চেহারা ভিন্ন।

স্বভাবঃ

পরিযায়ী এ পাখি বিচরণ করে মহাসাগরের উপকূল কিংবা উপসাগরীয় অঞ্চল এবং হ্রদ এলাকায়। এ ছাড়াও  তুন্দ্রা অঞ্চলে গ্রীষ্মকালীন সময়ে মহাসমুদ্র এলাকার মহীসোপানে এবং উপকূলীয় এলাকার জলাভূমিতে বিচরণ করে। আবার পাথুরে এলাকায়ও দেখা মেলে। এরা ছোট ছোট দলে বিচরণ করে। সারা দিন সমুদ্রের বুকে উড়ে উড়ে ব্যস্ত সময় পার করে।  দেখতে গোবেচারা টাইপ হলেও স্বভাবে কিছুটা হিংস্র এ পাখি অন্যসব জলাচর পাখির ধরা মাছ ঠোঁটে চেপে ধরার মুহূর্তে  কেড়ে নিয়ে খেয়ে ফেলে।

প্রজননঃ

প্রজনন মৌসুম মে থেকে সেপ্টেম্বর। বাসা বাঁধে মাটিতে অথবা পাথরের উপর শৈবাল, শ্যাওলা ও ঘাসলতা বিছিয়ে। ৪ টি জলপাই-বাদামী ডিম পাড়ে। প্রজননক্ষেত্রে থাকাকালীন এটি সাধারণত নীরব থাকে। ডিম ফুটতে সময় লাগে ২৫-২৮ দিন। শাবক উড়তে শেখে ২৫-৩০ দিনের মধ্যে। প্রাপ্ত বয়স্ক হতে সময় লাগে ৩-৪ বছর।

খাদ্য তালিকাঃ

মাছ। এছাড়াও অন্যান্য পাখিদের ডিম, ইঁদুর, পোকামাকড় এরা খায়। মাঝে মধ্যে ফলও খেতে দেখা যায়।

অবস্থাঃ

২০১৮ সালে, ২০০০-এর দশকের গোড়ার দিকে তাদের সংখ্যা ব্যাপকভাবে হ্রাস পাওয়ার পরে, ২০০০ সালে আইইউসিএন প্রজাতিটিকে লাল তালিকাভুক্ত করেছে।

বাংলাদেশের পাখির তালিকা-List of birds of Bangladesh
বাংলাদেশের স্বাদুপানির মাছ - Freshwater fish of Bangladesh
বাংলাদেশের মাছের তালিকা - List of fish of Bangladesh