ধলামাথা কাঠঠোকরা-Pale-headed woodpecker
Pale-headed woodpecker

ধলামাথা কাঠঠোকরা-Pale-headed woodpecker

ধলামাথা কাঠঠোকরা Picidae (পিসিডি) গোত্র বা পরিবারের অন্তর্গত Gecinulus গণের অন্তর্ভুক্ত এক প্রজাতির অতি পরিচিত পাখি । এটি ধূসরাভমুখ সবুজ-হলুদ কাঠঠোকরা নামেও পরিচিত।

ইংরেজি নাম: Pale-headed woodpecker

বৈজ্ঞানিক নাম: Gecinulus grantia

বর্ণনাঃ

ধলামাথা কাঠকুড়ালি তিন আঙুলের বাদামি কাঠঠোকরার দৈর্ঘ্য ২৫ সেমি, ডানা ১৩ সেমি, ঠোঁট ২.৬ সেমি, লেজ ৮.৩ সেমি। প্রাপ্তবয়স্ক পাখির পিঠ অনুজ্জ্বল লাল-বাদামি ও দেহতল মেরুন থেকে মেরুন-বাদামি; ঘাড় ও ঘাড়ের পাশ সোনালী জলপাই-হলুদ; ডানার বাদামি প্রান্ত-পালকে পীতাভ-পাটল বর্ণের ডোরা রয়েছে; ফ্যাকাসে ডোরাসহ বাদামি লেজ; ও অনুজ্জ্বল মেরুন থেকে মেরুন-বাদামি পেট। এর ঠোঁট পাণ্ডুর বর্ণের, গোড়া ফ্যাকাসে; চোখ লালচে-বাদামি; পা ও পায়ের পাতা জলপাই রঙের এবং নখরগুলো শিং-বাদামি। ছেলে ও মেয়েতে পাখিতে পার্থক্য শুধু তাদের মাথার চাঁদির বর্ণে: ছেলেপাখির গাঢ় লাল-পাটল বর্ণ ও মেয়েপাখির সোনালী-জলপাই। অপ্রাপ্তবয়স্ক পাখির অনুজ্জ্বল মাথা, বাদামি দেহতল ও মাথার চাঁদিতে লাল রঙ ছাড়া দেখতে মেয়েপাখির মত।

স্বভাবঃ

মূলত এরা বাঁশবন কিংবা আর্দ্র পাতাঝরা বনের বাসিন্দা। বিচরণ করে জোড়ায় কিংবা একাকী। মরা গাছের কাণ্ড ঠুকরিয়ে খাবার খোঁজে। এক গাছ থেকে অন্য গাছে যায় তরঙ্গাকারে ওপর-নিচ হয়ে ওড়ে। মজাদার সেই দৃশ্য উপভোগ করার মতো। কণ্ঠস্বর কর্কশ। ডাকে ‘চেইক-চেইক-চেইক..’ সুরে। বিরক্ত হলে সুর পাল্টে ফেলে। প্রজনন মৌসুমে পুরুষ পাখি স্ত্রী পাখিকে আকৃষ্ট করতে মরা গাছের কাণ্ডে ঠোঁট দিয়ে জোরে জোরে ড্রাম বাজানোর মতো শব্দ করে। এ ছাড়াও ডানা ঝাঁপটিয়ে উড়ে ভন ভন আওয়াজ করে স্ত্রীর মনোযোগ আকর্ষণের চেষ্টা করে।

প্রজননঃ

প্রজনন মৌসুম মার্চ থেকে মে। গাছের কাণ্ডে নিজেরা গর্ত খুঁড়ে বাসা বাঁধে। একই বাসা কয়েক বছর ব্যবহার করে। ডিম পাড়ে ৩টি। ডিম ফুটতে সময় লাগে ১৫-১৭ দিন।

খাদ্য তালিকাঃ

খাদ্য তালিকায় রয়েছে পোকামাকড়, বিশেষ করে পিঁপড়া ও গুবরে পোকার ছানা।

বিস্তৃতিঃ

ধলামাথা কাঠঠোকরা বাংলাদেশ, ভুটান, চীন, ভারত, লাওস, মায়ানমার, নেপাল, থাইল্যান্ড এবং ভিয়েতনামে পাওয়া যায়।ও বাংলাদেশের এরা চট্টগ্রাম, সিলেট অঞ্চলের দেখা য়ায।

অবস্থাঃ

বাংলাদেশে অপ্রতুল তথ্যশ্রেণীতে রয়েছে। বিগত তিন প্রজন্ম ধরে এদের সংখ্যা কমেছে, তবে দুনিয়ায় এখন ১০,০০০-এর অধিক পূর্ণবয়স্ক পাখি আছে, তাই এখনও আশঙ্কাজনক পর্যায়ে এই প্রজাতি পৌঁছেনি। সেকারণে আই. ইউ. সি. এন. এই প্রজাতিটিকে ন্যূনতম বিপদগ্রস্ত (Least Concern LC) বলে ঘোষণা করেছে। বাংলাদেশের ১৯৭৪ ও ২০১২ সালের বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইনে এই প্রজাতিটি সংরক্ষিত।