দেশি পানকৌড়ি
Indian Cormorant

Indian Cormorant

 দেশি পানকৌড়ি

দেশি পানকৌড়ি ফ্যালাক্রোকোরাসিডি গোত্র বা পরিবারের অন্তর্গত Phalacrocorax  গণের অন্তর্ভুক্ত এক প্রজাতির পানকৌড়ি।  গায়ের কালো রংয়ের জন্য একে জলের কাক নামেও ডাকা হয় এবং গ্রামাঞ্চলে পানিউড়ি, পানিকাবাডি, পানিকাউর, পানিকাউয়া, পানিকুক্কুট নামেও এটি পরিচিত।

ইংরেজি নাম: Indian Cormorant

বৈজ্ঞানিক নাম: Phalacrocorax fuscicollis

বর্ণনাঃ

লম্বায় ৬৩-৬৫ সেন্টিমিটার। এদের সমস্ত শরীর কালো পালকে আবৃত। সূর্যালোকে পিঠ থেকে নীলাভ-সবুজের আভা বের হয়। অন্য সময়ে ধূসর কালো দেখায়। গলা মলিন সাদা। প্রজনন পালক ভিন্ন। ওই সময় কানপট্টি এবং ঘাড়ের ওপর উপরের যৎসামান্য চুলসাদৃশ পালক দেখা যায়। ঠোঁট বড়শির মতো বাঁকানো, সরু লম্বা। পা হাঁসের পায়ের পাতার মতো জোড়া লাগানো। চোখ লাল। স্ত্রী-পুরুষ পাখি দেখতে একই রকম।

প্রজননঃ

বর্ষাকাল পানকৌড়ির প্রজনন ও বাসা বাঁধার জন্য পছন্দের ঋতু। জলাশয়ের তীরবর্তী গ্রামের উঁচু তেঁতুল, আম, জাম, হিজল গাছ এদের প্রিয়। কয়েক জোড়া পানকৌড়ি ও বক একসঙ্গে মিলে একই গাছে বাসা বাঁধে।  বাসা বাঁধতে এদের সময় লাগে ৪ থেকে ৬ দিন। তবে বাসা অন্যান্য অনেক পাখির মতো শিল্পসমৃদ্ধ নয়। মেয়ে পানকৌড়ি ডিম পাড়ে ৪-৫টি। পুরুষ ও স্ত্রী পাখি পালা করে ডিমে তা দেয়। ডিম ফুটতে সময় নেয় ২৭-২৯ দিন। ডিম ফুটে বেরোনোর পর ৩৫-৪০ দিনে বাচ্চারা উড়তে শেখে।

খাদ্য তালিকাঃ

পানকৌড়ির খাদ্য তালিকায় আছে টাকি, শোল, গজার, শিং, মাগুর, বাইন, পুঁটি, টেংরা ইত্যাদি ছোট ও মাঝারি আকৃতির মাছ ও মাছের পোনা। এছাড়াও এরা শামুক, জল-মাকড়সা, জলজ কীটপতঙ্গ, পোকামাকড়, ছোট জলসাপ ইত্যাদি খেয়ে থাকে।

স্বভাবঃ

এদের স্বভাব প্রজাতির অন্যদের মতোই। শীতকালে নদী বা জলাশয়ের তীরে কঞ্চি অথবা লাঠিসোটায় বসে পাখা মেলে রোদ পোহাতে দেখা যায়। কিছু সময় গায়ে রোদ লাগিয়ে ঝপাত করে ঝাঁপিয়ে পড়ে জলে। তার পর ডুব সাঁতার দিয়ে পিছু নেয় মাছের। শিকার ধরতে পারলে ভুস করে ভেসে ওঠে জলের ওপরে। ঠোঁট দিয়ে চেপে ধরা মাছটাকে গলাটানা দিয়ে গলাধঃকরণ করে। এরা একটানা দীর্ঘক্ষণ ডুবতে পারে বলে অনেকেই এদেরকে ডুবুরি পাখি নামেও ডাকে। 

বিস্তৃতিঃ

পাখিটি বাংলাদেশ, ভারত ছাড়াও দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বিভিন্ন দেশে দেখা যায়। সারা পৃথিবীতে এক বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে এরা বিস্তৃত, প্রায় ৯ লক্ষ ৪৬ হাজার বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে এদের আবাস।

অবস্থাঃ

বিগত কয়েক দশক ধরে এদের সংখ্যা অপরিবর্তিত রয়েছে, আশঙ্কাজনক পর্যায়ে যেয়ে পৌঁছেনি। সেকারণে আই. ইউ. সি. এন. এই প্রজাতিটিকে ন্যূনতম বিপদগ্রস্ত বলে ঘোষণা করেছে। বাংলাদেশের বন্যপ্রাণী আইনে এ প্রজাতিটি সংরক্ষিত।


পরবর্তী খবর পড়ুন : ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২২