হুদহুদ বা মোহনচূড়া
Common Hoopoe

হুদহুদ বা মোহনচূড়া

হুদহুদ বাংলাদেশের একটি বিরল পাখি। তবে এশিয়া ও ইউরোপে এটি প্রচুর দেখা যায় এবং এটি বিলুপ্তির শংকামুক্ত। এর অনেকগুলো উপপ্রজাতি রয়েছে।এটি 'Upupidae' পরিবারের অন্তর্ভুক্ত একটি পাখি। এই পাখি দেখতে অত্যন্ত সুন্দর, এর ঝুঁটি ও পাখার সৌন্দর্য একে বিশেষায়িত করেছে।

এর অন্যান্য নাম হুদহুদ, কাঠঠোকরা, কাঠকুড়ালি ইত্যাদি। এর মাথায় মোহনীয় লম্বা ঝুঁটির জন্য একে মোহনচূড়া নামেও ডাকা হয়।

ইংরেজি নাম Common Hoopoe/ Eurasian Hoopoe

বৈজ্ঞানিক নাম Upupa epops

বিবরণঃ

পাখিটির শরীর বাদামি এবং ডানা ও লেজে সাদা-কালো দাগ রয়েছে। মাথায় সুন্দর একটি ঝুঁটি। সেই ঝুঁটির হলদে বাদামি পালকের মাথাটা কালো রঙের। ২৫-৩২ সেন্টিমিটার পর্যন্ত লম্বা হয়ে থাকে। পাখা দুটি ছড়িয়ে দিলে তা ৪৪-৪৮ সেন্টিমিটার পর্যন্ত বিস্তৃত হয়। ওজন ৪৬-৮৯ গ্রাম পর্যন্ত।

বৈশিষ্ট্যঃ

এটি মেঠো পাখি, গ্রামে ঘরবাড়ির আঙ্গিনায় দেখতে পাওয়া যায়। বাসা করে গাছের কোটরে, পুরনো দেয়ালের ফাঁক-ফোঁকরে।

খাদ্য তালিকাঃ

কীট-পতঙ্গ, কেঁচো, বিভিন্ন ফল। লম্বা ঠোঁট মাঠের গর্তে ঢুকিয়ে পোকামাকড় বের করে এনে খায়।

প্রজননঃ

প্রজনন মৌসুম মার্চ থেকে জুন। বাসা বানিয়ে ডিম দেয় ৪-৫টি। গোলাকার ধরনের। রং সাদা। স্ত্রী পাখি ডিমে ১৮-২০ দিন তা দিয়ে বাচ্চা ফোটায়। 

হুদহুদ পাখির ঘটনাঃ

প্রাচীন মিসরে একে পবিত্র জ্ঞান করা হত। বাইবেল ও কুরআনে এই পাখির উল্লেখ আছে। কুরআনের সুরা নামলের ২০-২২ নং আয়াতে বলা হয়েছে, একটি হুদহুদ পাখি নবী হযরত সুলাইমান -এর পোষা ছিল এবং এর কাজ ছিল বিভিন্ন স্থান থেকে খবরাখবর সংগ্রহ করে নবীকে জানানো। নবী হজরত সুলাইমান (দঃ) এই পাখির দ্বারা ভূগর্ভস্থ জল ও আবহাওয়ার তথ্য সংগ্রহ করতেন। প্রাচীন পারস্যে এই পাখিকে সততার প্রতীক হিসেবে দেখা হত। তবে ইউরোপে একে চোর হিসেবে গণ্য করা হত। এস্তোনিয়ায় একে মৃত্যুর প্রতীকরূপে দেখা হয়।


পরবর্তী খবর পড়ুন : হরিয়াল