শেখ ফজলুল হক মনি এর পরিচয় ও জীবনী - Sheikh Fazlul Haque Moni's identity and biography
Sheikh Fazlul Haque Mani

শেখ ফজলুল হক মনি-Sheikh Fazlul Haque Mani

শেখ ফজলুল হক মনি ছিলেন একজন বাংলাদেশী রাজনীতিবিদ এবং সাংবাদিক। তিনি ছিলেন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাগ্নে এবং বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে অন্যতম প্রধান গেরিলা বাহিনী মুজিব বাহিনী তার নির্দেশে ও প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে গঠিত এবং পরিচালিত হয়।

জন্ম

শেখ ফজলুল হক মনি ১৯৩৯ সালের ৪ ডিসেম্বর গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া গ্রামের ঐতিহ্যবাহী শেখ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পূর্বপুরুষরা ছিলেন দরবেশ শেখ আউয়ালের বংশধর, যাঁরা উপমহাদেশের প্রখ্যাত ইসলাম সাধক হজরত বায়েজীদ বোস্তামী (রা.)-এর ধর্ম প্রচারে সহচর ছিলেন।

শিক্ষা

মধুমতী নদীর তীরভূমি টুঙ্গিপাড়ার সবুজ-শ্যামল গ্রামে শৈশব স্মৃতির মোহমায়া ছেড়ে শেখ ফজলুল হক মনি লেখাপড়ার সুবাদে ঢাকায় আসেন একবুক স্বপ্ন নিয়ে। অধ্যয়ন শুরু করেন নবকুমার ইনস্টিটিউটে। এই প্রতিষ্ঠান থেকে ১৯৫৬ সালে ম্যাট্রিক পরীক্ষায় কৃতিত্বের সঙ্গে উত্তীর্ণ হয়ে ভর্তি হন জগন্নাথ কলেজে এবং ১৯৫৮ সালে ইন্টারমিডিয়েট পাস করেন। ১৯৬০ সালে বরিশাল ব্রজমোহন কলেজে ভর্তি হয়ে এই শিক্ষপ্রতিষ্ঠান থেকেই বিএ ডিগ্রি লাভ করেন। এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগে ভর্তি হয়ে ১৯৬২ সালে এমএ ডিগ্রি লাভ করেন। এ সময় তিনি স্যার সলিমুল্লাহ মুসলিম হলের আবাসিক ছাত্র ছিলেন। এ ছাড়া কারাবন্দি থাকা অবস্থায় ১৯৬৭ সালে আইনশাস্ত্রে এলএলবি ডিগ্রি সম্পন্ন করেন বাংলার এই সূর্যসন্তান।

রাজনীতি

ছাত্রজীবন থেকেই শেখ মনি রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। ১৯৬০-১৯৬৩ সালে তিনি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ১৯৬২ সালে হামুদুর রহমান শিক্ষা কমিশন রিপোর্টের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য তিনি গ্রেফতার হন এবং ছয় মাস কারাভোগ করেন। ১৯৬৪ সালের এপ্রিল মাসে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর ও পূর্ব পাকিস্তানের তৎকালীন গভর্নর আবদুল মোনেম খানের নিকট থেকে সনদপত্র গ্রহণে তিনি অস্বীকৃতি জানান এবং সরকারের গণবিরোধী শিক্ষানীতির প্রতিবাদে সমাবর্তন বর্জন আন্দোলনে নেতৃত্ব দেন। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তার ডিগ্রি প্রত্যাহার করে নেয়। পরবর্তী সময়ে তিনি মামলায় জয়লাভ করে ডিগ্রি ফিরে পান। ১৯৬৫ সালে তিনি পাকিস্তান নিরাপত্তা আইনে গ্রেফতার হন এবং দেড় বছর কারাভোগ করেন।১৯৬৬ সালে ছয়দফা আন্দোলনে অগ্রণী ভূমিকা পালনের দায়ে তার বিরুদ্ধে হুলিয়া জারি হয় এবং তিনি কারারুদ্ধ হন। এ সময় বিভিন্ন অভিযোগে তার বিরুদ্ধে আটটি মামলা দায়ের করা হয়। ১৯৬৯ সালের গণআন্দোলনের সময় তাকে মুক্তি দেয়া হয়।

মুক্তিযুদ্ধ

১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে তার উদ্যোগে  মুজিব বাহিনী গঠিত হয়। এ বাহিনীর প্রধান সেনাপতি হিসেবে তিনি ঢাকা, চট্টগ্রাম, কুমিল্লা, নোয়াখালী, সিলেট ও পার্বত্য চট্টগ্রামে হানাদার পাকবাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ পরিচালনা করেন।

স্মরণিকা

২০১৫ সালে ঢাকায় অনুষ্ঠিত 'শহীদ শেখ মনি স্মৃতি আন্তর্জাতিক দাবা প্রতিযোগিতা' তার নামানুসারে নামাঙ্কিত করা হয়। তার নামে গোপালগঞ্জ জেলার পুরাতন স্টেডিয়াম ও একটি মিলনায়তনের নাম রাখা হয়েছে।

জাতীয় শিশু-কিশোর সংগঠন "শাপলা কুঁড়ির আসর" এর প্রতিষ্ঠাতা।

মৃত্যূ

অবুঝ দুই শিশুপুত্র শেখ ফজলে শামস পরশ শেখ ফজলে নূর তাপসকে রেখে বাংলার স্বাধীনতা-সংগ্রামের বিপ্লবী বীর শেখ ফজলুল হক মনি ও তাঁর সহধর্মিণী শামসুন্নেসা আরজু মনি ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট আন্তর্জাতিক মদদপুষ্ট দেশীয় কিছু সেনা ঘাতকের নির্দয় বুলেট বিদ্ধ হয়ে মৃত্যু আলিঙ্গন করে ইহকাল ত্যাগ করেন।