মিয়া খলিফার পরিচয়, জীবনী - Mia Khalifa Identity, Biography
Mia khalifa Pornstar

মিয়া খলিফার পরিচয়, জীবনী - Mia Khalifa Identity, Biography

মিয়া খলিফার পরিচয় এবং রহস্যময় জীবনী নিয়ে অনেকের জানার খুব আগ্রহ। কারণ তিনি পর্ণ দুনিয়ার এক জনপ্রিয় নাম। তবে সবই এখন অতীত। মিয়া খালিফা এখন পর্ণ দুনিয়া ত্যাগ করে অন্য পেশায় মনোযোগী হয়েছেন। সম্প্রতি বিয়ে করে সংসারী হওয়ার প্রস্তুতিও নিয়েছেন। বয়ফ্রেন্ডকে নিয়ে বেশ সুখে আছেন মিয়া খলিপা।

মিয়া খলিফা ২০১৪ সালে পর্ন ইন্ডাস্ট্রিতে খ্যাতি অর্জন করেছিলেন। ২০১৪ সালের শুরুর দিকে তিনি তার স্বামীর সাথে প্রথম পর্নো জগতে প্রবেশ করেন। তাঁরা দুজনে একটি NSFW সাব-রেডিটে বেশ কয়েকটি পর্নোগ্রাফিক ছবি পোস্ট করেন। তারপর শুরু হয় পর্ন ভিডিও বানানো।

সেই বছরের অক্টোবরে একটি ভিডিও পুরো মুসলিম বিশ্বকে হতবাক করেছিল। ভিডিওটিতে খলিফাকে হিজাব পরা অবস্থায় একটি থ্রিসোম সেক্সে দেখা যায়। এজন্য আইএসআইএস থেকে তাকে মৃত্যুর হুমকিও দেওয়া হয়েছিল। এই ঘটনার পরপরই তার বাবা-মা তাকে ত্যাজ্য ঘোষণা করেছিল।

মিয়া খলিফার পরিচয়

মিয়া খলিফা ১৯৯৩ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তার জন্মস্থান বৈরুত। লেবানন এবং দক্ষিণ লেবানন সংঘাতের কারণে তার পুরো পরিবার যুক্তরাষ্ট্রে চলে যায়। তারপর মূলত সেখানেই তাঁর বেড়ে ওঠা। কিশোর বয়সে, তিনি মেরিল্যান্ডের মন্টগোমেরি কাউন্টিতে থাকতেন।

তিনি পূর্বে ২০১৪ এবং ২০১৫ সালের মধ্যে চলচ্চিত্র অভিনেত্রী হিসাবে কাজ করেছিলেন। মূলত তিনি একজন পর্ণস্টার। নীল ছবির দুনিয়া এখন অতীত। তবু মিয়ার শরীরী আবেদনে ফের সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল এবং আবারো উত্তাপ কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিলেন মিয়া। পোশাকহীন শরীরে সোশ্যাল মিডিয়ায় ফের ধরা দিলেন প্রাক্তন পর্নস্টার।


মিয়া খলিফার শিক্ষা জীবন

মিয়া খলিফা টেক্সাস-এল পাসো (University of Texas-El Paso) বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চতর পড়াশোনা করেছেন। তিনি ইতিহাস বিভাগ থেকে স্নাতক ডিগ্রী লাভ করেন। তিনি বারটেন্ডার হিসাবে কাজ করেছিলেন এবং ডিল বা নো ডিল -এ ব্রিফকেস মেয়েও ছিলেন। তার স্কুল জীবনে, তিনি ল্যাক্রোস খেলতেন।

মিয়া খলিফার কর্মজীবন

অক্টোবর ২০১৪ সালে তিনি পর্নোগ্রাফি চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করেন এবং ডিসেম্বরে পর্নহাব ওয়েবসাইট তালিকায় শীর্ষ স্থানে অবস্থান নেন। তার পেশা নির্বাচন মধ্যপ্রাচ্যে বিতর্কের বিষয় হয়েছিল, বিশেষ করে একটি ভিডিও, যেখানে তিনি ইসলামিক হিজাব পরিহিত অবস্থায় যৌনকর্ম সঞ্চালন করেছিলেন। যদিও প্রায় তিন মাস পরই তিনি পর্ন শিল্প থেকে অবসর নিয়েছিলেন। বর্তমানে তিনি ক্রীড়া ভাষ্যকার হিসেবে কাজ করছেন।

মিয়া খলিফার ব্যক্তিগত জীবন

আঠারো বছর বয়সে, ২০১১ সালের ফ্রেব্রুয়ারিতে খলিফা তার বিদ্যালয়ের প্রেমিককে বিয়ে করেন, যিনি একজন মার্কিন নাগরিক। ২০১৪ সালে তাদের সম্পক বিচ্ছেদ ঘটে এবং ২০১৬ সালে বিবাহবিচ্ছেদ। ২০১৯ সালের দিকে তিনি সুয়েডিয় রন্ধনশিল্পী রবার্ট স্যান্ডবার্গের সাথে প্রণয়ে আবদ্ধ। সে বছরের ১২ মার্চে তাদের বাগদান সম্পন্ন হয়। সম্পতি তাদের বিবাহের পরিকল্পনা থাকলেও, ২০১৯-২০ করোনাভাইরাস সংকটের কারণে খলিফা স্যান্ডবার্গের সাথে বিবাহ স্থগিত করেছেন। বর্তমানে খলিফা লস অ্যানঞ্জেলেসে বাস করছেন।

মিয়া খলিফার মোট সম্পদ

মেগান অ্যাবটের (Megan Abbott) সাথে একটি সাক্ষাৎকারের সময়, মিয়া খলিফা তার উপার্জন সম্পর্কে তথ্য শেয়ার করেছিলেন। মিয়া তখন দাবি করেন যে তিনি চলচ্চিত্র অভিনেত্রী হিসাবে মাত্র ১২ হাজার ডলার পেয়েছিলেন। ২০২১ সালে মিয়া খলিফার মোট সম্পদ ৪ মিলিয়ন ডলার বলে তিনি দাবি করেন। মিয়া এবং তার সুইডিশ বাগদত্তা এখন একটি ইউটিউব চ্যানেল চালাচ্ছেন।


মিয়া খলিফার রহস্যময় চশমা

মিয়া খলিফার চশমা নিয়ে অনেকের অনেক আগ্রহ লক্ষ্য করা যায়। অনেকের মনের কৌতুহলেরও শেষ নেই। আপনি কি জানেন? পর্ন ভিডিওতে যে চশমা মিয়া ব্যাবহার করতেন সেটা তিনি তাঁর নিজ দেশের প্রয়োজনে নিলামে তুলেছিলেন। মিয়া খলিফা পেশাদার পর্নস্টার ছিলেন তখন তাকে খুনের হুমকি দিয়েছিল নিজের দেশ লেবাননের কট্টরপন্থীরা। দেশটিতে প্রবেশাধিকারও হারান তিনি। কিন্তু মাতৃভূমির সংকটে তিনিই এগিয়ে এসেছিলেন সাহায্যের হাত বাড়িয়ে।

সম্প্রতি ভয়াবহ বিস্ফোরণে বিধ্বস্ত লেবানন। দেশের পাশে দাঁড়াতে অর্থসংগ্রহের মিশনে নেমেছিলেন তিনি। সেজন্য তিনি নিজের বিখ্যাত চশমাটি নিলামে তুলেছেন। এ থেকে সংগৃহীত অর্থ তিনি ত্রাণে তুলে দিয়েছেন। দেশপ্রেমের এক অনন্ত নজীর স্থাপন করেছেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে সোশ্যাল মিডিয়ায় খলিফা জানান, লেবাননের পাশে দাঁড়াতে তার বিখ্যাত চশমা নিলামে তুলছেন তিনি। সেটির মূল্য এক লাখ ডলার উঠেছে। সেটি বিক্রি করে যে অর্থ তিনি পেয়েছেন, তা বিস্ফোরণ বিধ্বস্ত দেশের রেড ক্রসের ত্রাণ তহবিলে দান করেছেন।