২০২১ সালের সেরা করদাতা
The best taxpayer

The best taxpayer of 2021

২০২১ সালের সেরা করদাতা

২০২০-২১ অর্থবছরের সেরা করদাতা হিসেবে ১৪১ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে বিশেষ সম্মাননা ‘ট্যাক্স কার্ড’ দেয়া হয়েছে। ব্যক্তি ৭৫ জন, কোম্পানি ক্যাটাগরিতে ৫৪ ও অন্যান্য ক্যাটাগরিতে ১২ করদাতাকে এ সম্মাননা দেয়া হয়। এছাড়া সর্বোচ্চ ও দীর্ঘসময় আয়কর দেয়া ৫২৫ জন ‘সম্মানিত করদাতা’ সম্মাননা পেয়েছেন। গতকাল রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড আয়োজিত সেরা করদাতাদের ‘ট্যাক্স কার্ড ও সম্মাননা প্রদান’ অনুষ্ঠানে পুরস্কারপ্রাপ্তদের হাতে এ বছরের সম্মাননা তুলে দেয়া হয়।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার ঊষালগ্নে ১৯৭২ সালে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড গঠন করে এ দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও ধারাবাহিক উন্নয়নের ভিত রচনা করেছিলেন। তিনি অনুধাবন করেছিলেন, দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে সরকারকে যে উন্নয়ন ব্যয় করতে হয়, তার মূল জোগান আসে রাজস্ব ব্যবস্থা থেকে। ১৯৭২-৭৩ সালে যুদ্ধবিধ্বস্ত অর্থনীতিতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড ২৫০ কোটি টাকা লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে ১৬৬ কোটি টাকা রাজস্ব আদায় করেছিল, যা সময়ের পরিক্রমায় আজ মহীরুহে পরিণত হয়েছে।

অর্থমন্ত্রী আরো বলেন, আমাদের উন্নয়ন অভিযাত্রাকে সফল করতে অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে সম্পদের জোগান বাড়াতে হবে। রাজস্ব অনুপাত এখনো আমাদের প্রতিবেশী ও উন্নয়ন প্রতিযোগী অনেক দেশের তুলনায় কম। এ বিষয়ে আমাদের আরো কাজ করতে হবে। এনবিআরের রাজস্ব আদায়ের পরিমাণ ২০০৫-০৬ সালের ৩৪ হাজার কোটি টাকা থেকে সাড়ে সাত গুণেরও বেশি বেড়ে ২০২০-২১ অর্থবছরে ২ লাখ ৫৯ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। গত এক যুগে আয়করের পরিমাণ ৭ হাজার কোটি টাকা থেকে ১২ গুণ বেড়ে ৮৫ হাজার কোটি টাকায় দাঁড়িয়েছে। বর্তমানে দেশে একটি করদাতাবান্ধব পরিবেশ তৈরি হয়েছে। করদাতার সংখ্যাও প্রত্যাশিত হারে বাড়ছে।

সম্মাননা স্মারক ও ট্যাক্সকার্ড পেলেন যারা

সিনিয়র সিটিজেন ক্যাটাগরি

বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী, খাজা তাজমহল, ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার বদরুল হাসান, ট্রান্সকম লিমিটেডের লতিফুর রহমান ও পপুলার ডায়াগনস্টিকের ডা. মোস্তাফিজুর রহমান। 

গেজেটভুক্ত যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ক্যাটাগরি

মো. নাসির উদ্দিন মৃধা, মো. জয়নাল আবেদীন, মো. কোহিনুর ইসলাম খান ও এস এম আবদুল ওয়াহাব।

প্রতিবন্ধী ক্যাটাগরি

আকরাম মাহমুদ, ডা. মো. মামুনুর রশীদ ও লুবনা নিগার।

নারী ক্যাটাগরি

আনোয়ারা হোসেন, শাহনাজ রহমান, সেলিনা মাহবুব, ফারহানা মোনেম ও মোরশেদা নাসমিন।

তরুণ ক্যাটাগরি

আহমেদ ইমতিয়াজ খান, এস এম মঞ্জুরুল আলম অভি, মো. লুৎফর রহমান, মো. ফয়সাল হোসেন, আনিকা তারান্নুম আনাম।

ব্যবসায়ী ক্যাটাগরি

২০২০-২০২১ করবর্ষে ব্যবসায়ী ক্যাটাগরিতে কাউছ মিয়া সেরা করদাতা হলেন। ১৯৯৮ সাল থেকে তিনি দেশের সর্বোচ্চ করদাতার একজন। তিনি হাকিমপুরী জর্দার স্বত্বাধিকারী।

কাউছ মিয়া প্রথম আয়কর দেন ১৯৫৮ সালে। এ নিয়ে ২০১৯ সালে এনবিআরের এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেছিলেন, ‘আগে টাকাপয়সা এখানে-সেখানে রাখতাম। এতে নানা ঝামেলা ও ঝুঁকি থাকত। ১৯৫৮ সালে প্রথম কর দিয়ে “ফ্রি” হয়ে গেলাম। এরপর সব টাকাপয়সা ব্যাংকে রাখতে শুরু করলাম। হিসাবনিকাশ পরিষ্কার করে রাখলাম।’ ১৯৬৭ সালে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে ১ নম্বর করদাতা হয়েছিলেন কাউছ মিয়া।

বেতনভোগী ক্যাটাগরি

মোহাম্মাদ ইউসুফ, হোসনে আরা হোসেন, রুবাইয়াৎ ফারজানা হোসেন, লায়লা হোসেন ও এম এ হায়দার হোসেন।

ডাক্তার ক্যাটাগরি

ডা. জাহাঙ্গীর কবির, অধ্যাপক ডা. একেএম ফজলুল হক, ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত, ডা. এন এ এম মোমেনুজ্জামান ও নার্গিস ফাতেমা।

সাংবাদিক ক্যাটাগরি

ফরিদুর রেজা সাগর,আব্দুল মুকিত মজুমদার, মাহ্‌ফুজ আনাম, মোহাম্মদ আবদুল মালেক, মতিউর রহমান।

আইনজীবী ক্যাটাগরি

শেখ ফজলে নূর তাপস, কাজী মোহাম্মদ তানজিবুল আলম, আহসানুল করিম, নিহাদ কবির ও তৌফিকা আফতাব।

প্রকৌশলী ক্যাটাগরি

মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ, প্রকৌশলী মো. মোখলেছুর রহমান ও মো. জহুরুল ইসলাম।

স্থপতি ক্যাটাগরি

মোহাম্মদ ফয়েজ উল্লাহ, মো. রফিক আজম ও এনামুল করিম নির্ঝর।

অ্যাকাউন্ট্যান্ট ক্যাটাগরি

মো. ফারুক, মাশুক আহমেদ এফসিএ, মো. মুশতাক আহমেদ।

খেলোয়াড় ক্যাটাগরি

ক্রিকেটার মো. মাহমুদউল্লাহ, তামিম ইকবাল খান ও সৌম্য সরকার।

অভিনেতা-অভিনেত্রী ক্যাটাগরি

সুর্বণা মোস্তফা, বিদ্যা সিনহা মীম ও বাবুল আহমেদ।

গায়ক-গায়িকা ক্যাটাগরি

তাহসান রহমান খান, এসডি রুবেল ও কুমার বিশ্বজিৎ।

অন্যান্য ক্যাটাগরি

মাহমুদুল হক, খন্দকার মনির উদ্দিন ও সাইফুল ইসলাম।

টেলিকমিউনিকেশন

গ্রামীণ ফোন।

প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া

মিডিয়া স্টার, ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ, ট্রান্সক্রাফট লিমিটেড ও সময় মিডিয়া।