সম্বর হরিণ
Sambar deer

Sambar deer

সম্বর হরিণ

বড় শিংঘা বা সম্বর হরিণ বা সম্বর হরিণ প্রজাতিসমূহের মধ্যে অন্যতম বৃহৎ সদস্য। দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার অধিকাংশ এলাকাজুড়ে সম্বর হরিণ দেখা যায়। এর একাধিক উপপ্রজাতি রয়েছে।

ছোট ফইট্টা

ইংরেজি নাম: Sambar deer

বৈজ্ঞানিক নাম: Rusa unicolor

বিবরণঃ

অঞ্চলভেদে সম্বর হরিণের আকার ও ওজনের বিভিন্নতা দেখা যায়। পূর্বাঞ্চলীয় উপপ্রজাতিগুলোর তুলনায় পশ্চিমাঞ্চলীয় উপপ্রজাতিগুলো অপেক্ষাকৃত বৃহদাকৃতির। একটি পূর্ণবয়স্ক হরিণের উচ্চতা কাঁধ পর্যন্ত ৪০ থেকে ৬৩ ইঞ্চি ও ওজন ১৫০ থেকে ৩২০ কেজি পর্যন্ত হয়। এদের দেহ ছোট ছোট মেটে বা হলদে মেটে বর্ণের লোম দ্বারা আবৃত থাকে। পুরুষ হরিণের শাখাযুক্ত বৃহৎ শিং (প্রায় ৪৩ ইঞ্চি লম্বা) থাকে। লেজটি হরিণের জন্য অপেক্ষাকৃত লম্বা, এবং সাধারণত নিচের দিকে সাদা এবং উপরে কালো হয়।

আচরণঃ

সম্বর নিশাচর প্রাণী। পুরুষ হরিণরা বছরের বেশিরভাগ সময় একা থাকে এবং মহিলারা ছোট পালের মধ্যে থাকে। এটি হরিণের জন্য একটি অস্বাভাবিক প্যাটার্ন, যা সাধারণত বড় দলে বাস করে। তারা প্রায়ই জলের কাছাকাছি একাত্রিত হয়। বেশিরভাগ হরিণের মতো, সাম্বার সাধারণত শান্ত থাকে, যদিও সমস্ত প্রাপ্তবয়স্করা চিৎকার করতে পারে বা শঙ্কিত হলে ছোট, উচ্চ-পিচ শব্দ করতে পারে। যাইহোক, তারা সাধারণত সুগন্ধি চিহ্ন এবং ফুট স্ট্যাম্পিং দ্বারা যোগাযোগ করে।

বিস্তৃতিঃ

দক্ষিণ এশিয়ায় ভারত, বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কায় সম্বর হরিণ দেখতে পাওয়া যায়। বাংলাদেশের পূর্ব ও উত্তর- পূর্বাঞ্চলীয় পাহাড়ী বনভূমিতে সম্বর হরিণ আছে বলে জানা যায়। ভারত ও শ্রীলঙ্কার জাতীয় উদ্যান ও সংরক্ষিত বনাঞ্চলগুলোতে বড় বড় পালে সম্বর হরিণের দেখা মেলে। এছাড়া দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার মিয়ানমার, থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম, লাওস, মালয় উপদ্বীপ, ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রা ও বোর্নিও দ্বীপ সম্বর হরিণের আবাসস্থল। চীনের দক্ষিণাঞ্চল, হাইনান দ্বীপ ও তাইওয়ানেও এদের দেখতে পাওয়া যায়। এদের শিঙের জন্য তাইওয়ানে বিভিন্ন খামারে সম্বর হরিণ বাণিজ্যিকভাবে পালন করা হয়। এদের শিং ছোরার বাট আর আগ্নেয়াস্ত্রের হাতল তৈরীতে ব্যবহৃত হয়। এছাড়া যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডে এদের স্থানান্তর ঘটানো হয়েছে।

খাদ্য তালিকাঃ

ঘাস, পাতা, ফল এবং জলের উদ্ভিদ সহ বিভিন্ন ধরণের গাছপালা খায়। এছাড়াও তারা বিভিন্ন ধরনের গুল্ম এবং গাছ খেয়ে থাকে।

প্রজননঃ

গর্ভধারণ সম্ভবত প্রায় ৮ মাস স্থায়ী হয়, যদিও কিছু গবেষণায় বলা হয়েছে যে এটি কিছুটা দীর্ঘ হতে পারে। সাধারণত, একটি সময়ে শুধুমাত্র একটি বাছুর জন্মগ্রহণ করে, যদিও ২% পর্যন্ত যমজ সন্তানের জন্মের খবর পাওয়া গেছে। প্রাথমিকভাবে ৫ থেকে ৮কেজি ওজনের বাছুরগুলি হয়। বাছুরগুলি ৫ থেকে ১৪ দিনের মধ্যে শক্ত খাবার গ্রহণ করতে শুরু করে এবং এক মাস পরে গর্জন শুরু করে। সম্বর ২৪ বছর পর্যন্ত বন্দী অবস্থায় বাঁচে, যদিও তারা বন্য অবস্থায় বেঁচে থাকে ১২ বছরের বেশি।

অবস্থাঃ

সাম্বার (রুসা ইউনিকলার) হল ভারতীয় উপমহাদেশ, দক্ষিণ চীন এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার একটি বড় হরিণ যা 2008 সাল থেকে আইইউসিএন রেড লিস্টে একটি ঝুঁকিপূর্ণ প্রজাতি হিসাবে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। মারাত্মক শিকার, স্থানীয় বিদ্রোহ এবং জনসংখ্যার কারণে জনসংখ্যা উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পেয়েছে। বাংলাদেশের ২০১২ সালের বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইনের তফসিল-১ অনুযায়ী এ প্রজাতিটি সংরক্ষিত।


পরবর্তী খবর পড়ুন : ছোট ফইট্টা