শেফালী পাতা

শেফালী বা শিউলির  বৈজ্ঞানিক নাম:

Nyctanthes arbor-tristis

সুগন্ধিজাতীয় এ ফুলে রয়েছে পাঁচ থেকে সাতটি সাদা বৃতি ও মাঝে লালচে-কমলা টিউবের মতো বৃন্ত। এই ফুল রাতে ফোটে, সকালে ঝরে যায়। দক্ষিণ এশিয়ার দক্ষিণ-পূর্ব থাইল্যান্ড থেকে পশ্চিমে বাংলাদেশ, ভারত, উত্তরে নেপাল, ও পূর্বে পাকিস্তান পর্যন্ত এলাকা জুড়ে দেখতে পাওয়া যায়।শিউলি ফুলের গাছ কাষ্ঠল, ঝোপাল, গুল্ম ও বহুবর্ষজীবী। এটি ১০ মিটারের মতো লম্বা হয়। বাকল নরম ধূসর এবং গাছের পাতা ছয় থেকে সাত সেন্টিমিটার লম্বা হয়। ফল চ্যাপ্টা ও বাদামি হৃৎপিণ্ডাকৃতি।

অন্যান্য নাম:নাইট ফ্লাওয়ার জেসমিন,হারসিঙ্গার,কোরাল জেসমিন,পারিজাত,শেফালিকা,পারিজাতা,পারিজাতাকা,রাগাপুস্পি,খারাপাত্রাকা,প্রজক্তা

শেফালী পাতার উপকারিতা:

শিউলির ভেষজ গুণও অনন্য। স্বাদে তিতা হলেও মৌসুমি জ্বর, গলা বসা, ক্রিমি, জন্ডিস ও খাদ্যে বিষক্রিয়াজনিত সমস্যায় দু-তিন চামচ পাতার রস সেবন উপকারী। এ ছাড়া অতীতে খাবারের রং হিসেবে শিউলি বোঁটার ব্যবহার ছিল।

ঠান্ডাজনিত সমস্যা কমায়

ঠান্ডাজনিত সমস্যায় ভুগলে খেতে পারেন শিউলি পাতার রস। নিয়মিত ২ চামচ পরিমাণ পাতার রস হালকা গরম খেলে এই সমস্যায় উপকার পাবেন।

কাশি কমায়

শিউলি পাতার স্বাদ খুবই তিতকুটে হয়ে থাকে। এ পাতার রস সেবনে কাশির সমস্যা কমে।

বাতের ব্যথা সারায়

অনেকেরই বাতের ব্যথা রয়েছে। তারা প্রতিদিন সকালে এক কাপ পানিতে দুটি শিউলি পাতা ও দুটি তুলসি পাতা ফুটিয়ে ছেঁকে পান করতে পারেন। এতে উপকার মিলবে।

টাটকা রস মধুর সাথে মিশিয়ে খেলে পুরানো জ্বর উপশম হয়।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে

গবেষণা অনুযায়ী, রোগ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়া প্রতিরোধে কাজ করে শিউলি পাতার রস। এই পাতায় রয়েছে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটারি উপাদান। এই দুটি উপাদান রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে।

কৃমির সমস্যা দূর করে

কৃমির সমস্যা সমাধানে দারুণ কাজ করে শিউলি পাতা। এছাড়া এই গাছের ছাল চূর্ণ করে সকালে ও বিকালে গরম পানিতে মিশিয়ে খেলে দেহের বাড়তি মেদও কমে।

ফুলের বোঁটা গুলো শুকিয়ে গুঁড়ো করে পাউডার করে হালকা গরম পানিতে মেশালে চমৎকার রঙ হয়।



পরবর্তী খবর পড়ুন : জবার উপকারিতা ও ঔষধি গুণ

আপনার মতামত লিখুন :